আজ রিয়ালের উৎসবের রাত!

মে ২১ ২০১৭, ১০:১২

গুঞ্জন থেমে নেই। বাতাসে ভেসে বেড়াচ্ছে কত কত ষড়যন্ত্র-তত্ত্ব! মালাগা নাকি আজকের ম্যাচ ‘ছেড়ে’ দেবে রিয়াল মাদ্রিদকে। কেন? প্রথমত তাদের কোচ মিচেল গনসালেস ছিলেন রিয়াল মাদ্রিদের ফুটবলার; ওই ক্লাবটির কিংবদন্তি। দ্বিতীয়ত, মিচেলকে কেন্দ্র করে মালাগা-বার্সেলোনা সম্পর্ক খারাপ হওয়া। মালাগা প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ আল-থানির টুইট বার্তা নিয়ে বার্সা আনুষ্ঠানিক অভিযোগ পর্যন্ত করে কর্তৃপক্ষের কাছে। আর তৃতীয়ত, জিনেদিন জিদানের দল লা লিগা জিতলে মালাগার অ্যাকাউন্টে জমা হবে এক মিলিয়ন ইউরো। ২০১৩ সালে ইসকোকে বিক্রির সময়ই নাকি একটি ধারা ছিল—পরের পাঁচ বছরের মধ্যে রিয়াল লিগ জিতলে বাড়তি এক মিলিয়ন ইউরো দিতে হবে পুরনো ক্লাবকে।

তাহলে? আজ মালাগার বিপক্ষে হার এড়াতে পারলেই যখন স্প্যানিশ লা লিগার শিরোপা জিতবে রিয়াল মাদ্রিদ, তখন তাদের তো আগাম উল্লাস করে ফেলার কথা!

ভুল। সেল্তা ভিগোর বিপক্ষে রিয়ালের আগের ম্যাচের আবহেও ‘মালেতিন’ শব্দটি উড়ে বেড়িয়েছে স্পেনের ফুটবলাঙ্গনে। ব্রিফকেসে ভরা অর্থের বিনিময়ে তারা নাকি ম্যাচ ছেড়ে দেবে ‘লস ব্লাংকো’দের। তা তো শেষ পর্যন্ত ডাহা মিথ্যা বলে প্রমাণিত। রিয়াল ৪-১ গোলে জিতেছে বটে, তবে সে জন্য প্রচুর ঘাম ঝরাতে হয়েছে তাদের। ২০১১-১২ মৌসুমের পর আবার লিগ শিরোপা জিততে হলে আজ মালাগার বিপক্ষে তাই রিয়ালের আয়েশি হওয়ার সুযোগ নেই।

হ্যাঁ, কিছু সুবিধা তো রয়েছেই লিগের সর্বোচ্চ ৩২ বারের চ্যাম্পিয়নদের। যেমন আজ ড্র করলেই লক্ষ্যপূরণ। ৩৭ ম্যাচে ৯০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলশীর্ষে তারা। ৩ পয়েন্ট পেছনে বার্সা। এইবারের বিপক্ষে আজকের ম্যাচে জিতলে লুইস এনরিকের দলেরও পয়েন্ট হবে ৯০। প্রার্থনায় থাকতে হবে মালাগার কাছে রিয়ালের পরাজয়ের। সে ক্ষেত্রে দুই দলের পয়েন্ট হবে সমান। আর মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়ে থাকায় লিগ শিরোপা ধরে রাখতে পারবে বার্সা।

কিন্তু সেটা কি আর হতে দেবে এই রিয়াল মাদ্রিদ? তা ওই ‘তেনেরিফাসো’র ইতিহাস মাথায় রেখেই বলা। নব্বইয়ের দশকের শুরুতে পর পর দুই মৌসুমের শেষ ম্যাচে শিরোপা খোয়ায় রিয়াল। জয়ের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে শুরু করে তেনেরিফের কাছে যায় হেরে। শিরোপা জেতে তাই বার্সা। কিন্তু ওই রিয়াল মাদ্রিদ তো আর জিদানের এই দল না। এই ফরাসি কোচ তো অনায়াসে দুটি কাছাকাছি মানের একাদশ নামিয়ে দিতে পারেন। ওই ‘এ টিম’ আর ‘বি টিম’-এ ক্লাব কোচিংয়ে নতুন এক ধারণাও খুলে গেছে। অবশ্য মৌসুমের শেষে এসে অমন ঝুঁকি আর নিচ্ছেন না জিদান। আগের ম্যাচের মতো আজও মূল একাদশই খেলবে রিয়ালের।

সেই মূল একাদশের মূল খেলোয়াড় ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। মৌসুমে এখন পর্যন্ত সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ৪৪ ম্যাচ খেলেছেন এই পর্তুগিজ। ২০০৯ সালে রিয়ালে যোগ দেওয়ার পর ইনজুরি-জর্জর প্রথম মৌসুমেই কেবল মাঠে

নামেন এর চেয়ে কম। এবারের ৩৯ গোলের চেয়ে কম গোলও শুধু সেবার। তবে এ মৌসুমের রোনালদো বিশ্রাম পেয়ে শেষ দিকে যেন বিধ্বংসী হয়ে উঠেছেন আরো বেশি। চ্যাম্পিয়নস লিগে তাঁর আগুনে পুড়েছে বায়ার্ন মিউনিখ, আতলেতিকো মাদ্রিদ। যে কারণে ‘লস ব্লাংকো’রা এখন ফাইনালে। আবার লিগের মহাগুরুত্বপূর্ণ সময়ে সর্বশেষ দুই ম্যাচে সেভিয়া ও সেল্তা ভিগোর বিপক্ষে রোনালদোর দুটি করে গোল। আজও ওই পর্তুগিজ দানবের বিপক্ষে বাজি ধরার লোক খুঁজে পাওয়া কঠিন।

সেই ২০০৯ সালে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড থেকে রিয়ালে এসেছেন রোনালদো। এরপর দু-দুবার চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতলেও লিগ জেতেন কেবল একবার। ঘরোয়া ফুটবলের সময়টাতে যে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনারই রাজত্ব! সর্বশেষ আট মৌসুমে ছয়বারই লিগ শিরোপা তাদের। এবার লড়াই থেকে তারা একরকম ছিটকে যায় মালাগা, সেল্তা ভিগো, দেপোর্তিভো লা করুনার মতো দলগুলোর কাছে হেরে। এরপর ‘এর ক্লাসিকো’র সেই ধ্রুপদী লড়াইয়ে লিওনেল মেসির শেষ মুহূর্তের জাদুতে রিয়াল মাদ্রিদকে হারিয়ে ফেরে রেসে।

সেই থেকে নিজেদের সবগুলো ম্যাচই জিতেছে বার্সা। সমস্যা হচ্ছে, জয়রথ ছুটছে রিয়াল মাদ্রিদেরও। সে কারণেই তো আজ মালাগার দিকে তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে তাদের। সঙ্গে অবশ্য জিততে হবে এইবারের বিপক্ষে নু ক্যাম্পের ম্যাচটিও। মেসি-সুয়ারেস-নেইমারে সে কাজটি খুব কঠিন হবে না হয়তো। কিন্তু এখানেই সেই একই সমস্যা, মালাগাকে হারানোও তো রিয়ালের জন্য কঠিন হওয়ার কথা না।

তা-ই যদি হয়, তাহলে পেপ গার্দিওলার সঙ্গে বেশ এক মিল দিয়েই ক্যারিয়ার শেষের পথে থাকবেন এনরিকে। পূর্বসূরির মতো দু’কূল উপচানো সাফল্য হয়তো পাননি, কিন্তু বার্সাকে ‘ট্রেবল’ও তো জিতিয়েছেন এনরিকে। আর গার্দিওলার শেষ মৌসুমটা শেষ হয় যেমন শুধু কোপা দেল রে দিয়ে, সেখানেও হয়তো হবে ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি। আজ লা লিগা ফসকে গেলে আলাভেসের বিপক্ষে ওই কাপ ফাইনালই তো বাকি থাকবে এনরিকের জন্য।

অবশ্য তা নিয়ে এখন নিশ্চয়ই ভাবছে না বার্সা। রিয়াল মাদ্রিদের যেমন ভাবনার চৌহদ্দিতে নেই জুভেন্টাসের বিপক্ষে চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনাল। লা লিগার এই শেষ রাউন্ডেই বরং সমস্ত মনোযোগ সবার। আর দীর্ঘ লিগ মৌসুমের ম্যারাথনের শেষ ল্যাপটিও কী রোমাঞ্চের রেণুই না ছড়াচ্ছে! মার্কা, ইএসপিএন

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>