কলাপাড়ায় কুলসুম হত্যার নয় মাসেও ধরা ছোয়ার বাইরে ঘাতকরা, নিহতের মায়ের সংবাদ সম্মেলন

জুলাই ১৯ ২০১৭, ১৮:২৫

hdr

পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ দ্বিতীয় স্ত্রী এইচএসসি উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী কুলসুম বেগমকে (২০) বাড়িতে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে হত্যার নয় মাস পরও ধরা পড়েনি ঘাতকরা। সবাই পুলিশি গ্রেফতার এড়াতে গা ঢাকা দিয়েছে। পাষন্ড, বিয়ে পাগলা স্বামী মধ্যবয়সী কেফায়েত উল্লাহ মুন্সী, তার প্রথম স্ত্রী হালিমা, প্রথম স্ত্রীর ছেলে রাকিবুল ও নায়েম নৃশংস হত্যাকান্ড ঘটায় বলে কুলসুমের বাবা নুর মোহাম্মদ ও মা ফিরোজা বেগম দায়ের করা হত্যা মামলায় এসব উল্লেখ করেছেন। বর্তমানে এ মামলার আসামীরা কুলসুমের বাবাকে মামলা নিয়ে ঘাটাঘাটি করতে নিষেধ করে আসছে। হুমকি দিয়ে আসছে মামলা পরিচালনা না করার জন্য। এমনকি এসব করলে ফের কুলসুমের মতো প্রাণ দিতে হবে বলেও খুন-জখমের হুমকি দেয়া হচ্ছে। এসব লিখিত অভিযোগ পাঠ করে বুধবার দুপুরে কলাপাড়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন কুলসুমের মা

ফিরোজা বেগম। তিনি জানান, ২০১৬ সালের ২অক্টোবর রাত আনুমানিক ১০টার দিকে কুলসুমকে পিটিয়ে অচেতন অবস্থায় পুকুরে ফেলে দেয়। চম্পাপুর ইউনিয়নের কানাই মৃধা গুচ্ছগ্রামে (নাপিতকান্দা) বসবাস ছিল কুলসুমের। একই গ্রামে বসবাস কেফায়েতের। স্ত্রীসহ একাধিক সন্তান থাকা সত্ত্বেও তিন বছর আগে কুলসুমকে গোপনে বিয়ে করে কেফায়েত উল্লাহ। কুলসুমকে কখনও কেফায়েত বাড়িতে নেয়নি। ২ অক্টৈাবর রবিবার রাতে কুলসুমকে খবর দিয়ে কেফায়েত উল্লাহ বাড়িতে আসতে বলে। সে তার বাবাকে নিয়ে কেফায়েতের বাড়ির আঙিনায় পৌছলেই কেফায়েত তার ছেলেদের নিয়ে কুলসুমের ওপর হামলে পড়ে। পুলিশ রাতেই মৃতদেহ উদ্ধার করে। কুলসুম বিএ ক্লাশে ভর্তির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। কলাপাড়া থানার ওসি জিএম শাহনেওয়াজ জানান আসামিরা সবাই এলাকা ছাড়া। তারপরও কৌশলে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। আর কুলসুমের পরিবারের সকল নিরাপত্তা দিতে পুলিশ সচেষ্ট রয়েছে।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>