কলাপাড়ায় ’মোরা’ আতঙ্কে র্নিঘুম রাত কাটিয়েছে মানুষ

আপডেট : May, 30, 2017, 11:44 pm

কলাপাড়া প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর কলাপাড়ার প্রাকৃতিক দুর্যোগ কবলিত মানুষ এবার ঘুর্নিঝড় ’মোরা’ আতংকে র্নিঘুম রাত কাটিয়েছে। থমকে থাকা কালো মেঘ আর গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি মনে করিয়ে দেয় সুপার সাইক্লোন সিডরের কথা। যে ঘূর্নিঝড়ে শতাধিক মানুষ প্রান হারিয়েছে। ঘূর্নিঝড় সিডরের দীর্ঘ ১০ বছর পর আট নম্বর মহাবিপদ সংকেত থাকায় মানুষ বেড়িয়ে পড়েছিল ঘরের বাইরে। আশ্রয় নিয়েছিল বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্র সহ স্কুল, কলেজের মিলনায়তন এবং এলাকার পাকা-আধাপাকা বাড়ী গুলোতে। রেড ক্রিসেট সোসাইটির সদস্যরা এলাকায় সাইরেন বাজিয়ে সতর্কীকরন বিজ্ঞপ্তি দেয়ায় এ আতংক আরো বেড়ে যায়। উপজেলা প্রশাসন জনসাধারনের জান-মাল রক্ষার্থে মেডিকেল টিম গঠন, শুকনা খাবার সংগ্রহ সহ প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহন করেছিল। মংগলবার সকাল ৬ টা থেকে দুপুর ১২ টার

মধ্যে আঘাত হানার কথা থাকলেও মানুষ সারারাত নির্ঘুম রাত কাটিয়েছে। বিশেষ করে বন্যা নিয়ন্ত্রন বেড়িবাঁেধর বাইরের এবং নদী সংলগ্ন শতশত পরিবার পানি আতংকে রাত জেগেছিল। এছাড়া উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে বেড়িবাঁধ ভাংগা থাকায় সবচেয়ে বেশী আতংক ছিল ওই সব ইউনিয়নের মানুষের মধ্যে।
এ ব্যাপারে ধানখালী ইউনিয়নের লোন্দা গ্রামের অধিবাসী মো. বসির মিয়া জানান, শতশত মানুষ বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নেয়ার পর বিভিন্ন স্কুল এবং কলেজে আশ্রয় নিয়েছে। তাদের ধারনা ছিল ঘূর্নিঝড় মোরায় পানি বন্দি হয়ে পড়বে মানুষ ।
মহিপুর ইউনিয়নের নিজামপুর গ্রামের অধিবাসী জয়নাল আবেদীন জানান, এলাকার মানুষ মোরা আতংকে নির্ঘুম রাত কাটিয়েছেন। তাদের অনেকে রাস্তায় এবং আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছে। তবে তাদের সবাই আতংকে রাত কাটিয়েছে।

Facebook Comments