কলেজ কর্মচারীর বিরুদ্ধে ছাত্রীকে যৌন হয়রানীর অভিযোগ

জুলাই ০৫ ২০১৭, ০১:০৫

ডেস্ক রিপোর্ট: এ একাদশ শ্রেনীর ভর্তিচ্ছু ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে কলেজের অফিস সহকারীর বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে দেওয়া লিখিত অভিযোগ প্রত্যাহার ও অভিযুক্তের সাথে মীমাংসা হওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগের অভিযোগ পাওয়া গেছে বরিশালের গৌরনদীর মাহিলাড়া ডিগ্রি কলেজের কয়েকজন শিক্ষকের বিরুদ্ধে। ভুক্তভোগি ওই ছাত্রীর অভিযোগে জানাগেছে, এবছরের একাদশ শ্রেনীতে ভর্তি হওয়ার জন্য তিনি (ছাত্রী) অনলাইন আবেদনে একমাত্র মাহিলাড়া ডিগ্রি কলেজ পছন্দের তালিকায় দেন। কিন্তু জিপিএ কম থাকায় প্রথম, দ্বিতীয় এবং তৃতীয়বারের ভর্তি ফলাফলে তার নাম চুড়ান্ত ফলাফলে আসে নাই। এবিষয়ে ২০ জুন মঙ্গলবার দুপুরে কলেজে গিয়ে প্রথমে অধ্যক্ষ ফিরোজ ফোরকান আহম্মেদের সাথে ভর্তির জন্য আলাপ করেন। অধ্যক্ষ ফিরোজ ফোরকান বিষয়টি নিয়ে অফিস সহকারী কামাল পারভেজের সাথে যোগাযোগ করতে বলেন। পরবর্তীতে কামালের কাছে গিয়ে ভর্তির বিষয়ে কথা বলতে গেলে কামাল তাকে (ছাত্রী) কলেজের দ্বিতীয় তলার নির্জন রুমে নিয়ে যায় এবং ভর্তি হওয়ার শর্ত হিসেবে কামালকে চুমো দেওয়ার কথা বলে। ওই ছাত্রী আরও জানায়, ভর্তির ব্যাপারে অফিস সহকারী এরুপ আচরনে সে (ছাত্রী) হতভম্ব হয়ে পড়ে। একপর্যায়ে কামালকে সে (ছাত্রী) রমজানের পবিত্রা রক্ষা করার কথা বললে কামাল তাকে (ছাত্রী) উদ্দেশ্যে করে বলে হুজুর হইছো কিছু বুঝনা ভর্তি হইতে হলে চুমো দেয়া লাগবে। অফিস সহকারীর মূখ থেকে দ্বিতীয়বার একথা শোনার পর সে (ছাত্রী) কাঁদতে কাঁদতে বাড়ি

চলে যায়। পরবর্তীতে বিষয়টি তার (ছাত্রীর) পরিবারের কাছে ঘটনার বিস্তারিত খুলে বললে ওইদিন রাতেই স্থানীয় প্রশাসন, কলেজ অধ্যক্ষ ও কয়েকজন শিক্ষককে মৌখিক ভাবে জানানো হয়। তিনি আরও জানান, ঘটনার বিষয়ে অবহিত ও অভিযুক্ত ওই অফিস সহকারীর বিরুদ্ধে গৌরনদী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ দেওয়ার পর থেকে কলেজের কয়েকজন শিক্ষক ওই ছাত্রীর অভিযোগ প্রত্যাহার ও আপষ মীমাংসার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন। এবিষয়ে জানতে চাইলে অভিযোগ অস্বীকার করে কামাল পারভেজ জানান, ২০ জুন সারাদিন কলেজে প্রচন্ড ভীর ছিলো। এমনকি তিনি (কামাল) সার্বক্ষনিক রুমের মধ্যেই অন্যসব কর্মচারীদের সাথে কাজ করেছেন। কিন্তু ওই ছাত্রী তার উপর কেন দূর্নাম ছরাচ্ছেন তা তার (কামালের) বোধগম্য নয় বলে তিনি উল্লেখ করেন। অপরদিকে একাদশ শ্রেনীতে ভর্তিতে সরকার নির্ধারিত এক হাজার টাকার বিপরীতে ২৫ শত টাকা করে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে ওই কলেজ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। এসব বিষয়ে জানতে মাহিলাড়া ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ ফিরোজ ফোরকান আহম্মেদ জানান, ঘটনার তদন্তে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়াও বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। অতিরিক্ত ভর্তি ফি’র বিষয়ে তিনি জানান, গভর্নিং বডির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ভর্তি ফি নেয়া হচ্ছে। গৌরনদী উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি শরিফ আহম্মেদ জানান, ভুক্তভোগি ওই ছাত্রী লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। এবিষয়ে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>