কালুশাহ সড়কে নবনির্মিত ড্রেন জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি দিলো এলাকাবাসীকে

জুন ১২ ২০১৭, ২২:১৪

 

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নগরীর কালুশাহ সড়ক এলাকার বাসিন্দাদের দীর্ঘ দুই যুগের জলাবদ্ধতার ভোগান্তি দূর করলো একটি পরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থা। সিটি মেয়র আহসান হাবিব কামাল এর প্রচেষ্টায় পরিকল্পিত মাস্টার ড্রেন নির্মানের ফলে ওই এলাকায় এখন আর জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয় না। গত কয়েক দিনের প্রবল বর্ষন হলেও কালুশাহ সড়কটির কোথাও জমেনি এক ফোটা পানি। ড্রেন হয়ে তা নেমে যাচ্ছে খাল এবং নদীতে। দীর্ঘ বছর পরে হলেও জলাবদ্ধতার দুর্ভোগ থেকে ভোগান্তি দূর করায় নগর পিতা সিটি মেয়র মো. আহসান হাবিব কামালকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন কালুশাহ সড়ক এলাকার বাসিন্দারা।

তারা জানান, সিটি কর্পোরেশন এলাকার মধ্যে কালুশাহ সড়ক এলাকাটি জনগুরুত্বপূর্ণ এলাকা। এখানে চিকিৎসক, প্রকৌশলী, আইনজীবী সহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের বসবাস। কিন্তু এই এলাকাটির চলাচলের প্রধান সড়ক থেকে শুরু করে প্রায় প্রত্যেকটি সড়কই বর্ষা মৌসুম আসলেই পানির নিচে ডুবে যায়। সামান্য বৃষ্টি হলেই সৃষ্টি হয় হাটু সমান জলাবদ্ধতা। গৃহবন্দি হয়ে পড়ে এখানকার মানুষ। দীর্ঘ প্রায় দুই যুগ ধরে এমন ভোগান্তি পিছু ছাড়ছিলো না এলাকার মানুষের। কিন্তু সিটি মেয়র মো. আহসান আবিব কামাল এর উন্মুক্ত চিন্তাধারা এবং তার মাষ্টার পরিকল্পনার কারণে জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি পেয়েছেন কালুশাহ সড়ক এলাকার হাজার হাজার বাসবাসকারী।

কালুশাহ সড়কের বাসিন্দা নিজামুর রহমান জানান, এলাকার মানুষের দাবী বাস্তবায়নের জন্য সিটি মেয়র মো. আহসান হাবিব কামাল কালুশাহ সড়ক এলাকায় একটি মাস্টার ড্রেন নির্মান প্রকল্পের কাজ শুরু করেন। এলাকার কবিরাজ বাড়ি এবং সিটি মেয়র এর বাড়ির পেছন থেকে সাগরদী পুল পর্যন্ত সাড়ে ৫টা থেকে ৬ ফুট গভীরতার এই

মাস্টার ড্রেনটির আউটফল ৩২ থেকে ৩৬ ইঞ্চি করে নির্মান করা হয়েছে। এর ভার্টিকাল ঢালাই শেষ হয়ে এখন উপরের স্লাপ এর ঢালাই কাজ চলছে। তবে অনেক আগেই ড্রেন থেকে পানি প্রবাহ শুরু হয়েছে। বৃষ্টি কিংবা মানুষের গৃহস্থলির পানি এখন আর রাস্তা কিংবা জলাশয়ে জমে থাকছে না। বিশাল ড্রেন নিয়ে সরাসরি পানি নেমে যাচ্ছে খাল হয়ে নদীতে। পরিকল্পিত মাস্টার ড্রেনটির কারনে আগামী কয়েক বছরে এলাকায় কোন কারন ছাড়া জলাবদ্ধতার সম্ভাবনা নেই বলেও জানিয়েছেন ড্রেন নির্মান কাজের ঠিকাদার এবং এলাকার বাসিন্দা নিজামুর রহমান।

ড্রেনেজ ব্যবস্থার সুবিধাভোগকারী এলাকার একাধিক বাসিন্দারা জানান, সর্বশেষ ১৯৯১ সালের দিকে কালুশাহ সড়ক এলাকায় একটি ড্রেন নির্মান করা হয়েছিলো। মাঝারী শহর প্রকল্পের আওতায় তখন অপরিকল্পিত ভাবে নির্মান হওয়া ড্রেনটি ছিলো ৮ ইঞ্চি। যে কারনে ড্রেনটি থেকে অবাধে পানি প্রবাহ ছিলো না। এতে করে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে গৃহবন্দি হয়ে থাকতে হতো এখানকার বাসবাসকারীদের। কিন্তু বিষয়টির দিকে কারোরই তেমন কোন গুরুত্ব ছিলো না। কিন্তু সিটি মেয়র আহসান হাবিব কামাল’র সহযোগিতা এবং প্রচেষ্টার কারনেই নতুন পরিকল্পিত ড্রেন নির্মান এবং জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি পেয়েছেন সাধারন মানুষ। এজন্য মেয়রকে ধন্যবাদও জানিয়েছেন এলাকার মানুষ। তাছাড়া সিটি মেয়র এর উদ্যোগকে বাস্তবায়ন করতে সহযোগিতাও করেছেন কালুশাহ সড়ক এলাকার বসবাসকারীরা। এলাকার স্থায়ী বাসিন্দারা নিজেদের সুবিধা এবং উন্নয়নের স্বার্থে নিজেদের ব্যক্তিমালিকানাধীন জমিও ছেড়ে দিয়েছেন ড্রেন নির্মানের জন্য। জলাবদ্ধতার ভোগান্তির কাছে সামান্য একটু জমি তাদের কাছে মূল্যহীন বলে প্রমান করেছে। বিধায় ড্রেন নির্মানের জন্য স্বেচ্ছায় মালিকানাধীন জমিও ছেড়ে দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>