কুয়াকাটায় সাগরের টানে উচ্ছ্বাস প্রাণে

ঈদুল ফিতরের ছুটিতে পর্যটকদের পদচারণে মুখর এখন সমুদ্রসৈকত কুয়াকাটা। সমুদ্রসৈকতটি ঘিরে ছোটখাটো সব ব্যবসাতেও প্রাণ ফিরেছে। পর্যটকেরা আশপাশের দর্শনীয় স্থানগুলোতেও ঢুঁ মারছেন। তবে হোটেলের কক্ষ ও খাবারের দাম, ফটোশিকারিদের উৎপাত, মোটরসাইকেলচালকদের হাতে হেনস্তার অভিযোগ করেছেন পর্যটকেরা। এদিকে পর্যটক পুলিশ জানিয়েছে, পর্যটকদের জন্য সৈকতসহ আশপাশের স্থানজুড়ে বাড়তি নিরাপত্তাব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ঈদের ছুটিতে কুয়াকাটায় অনেক পর্যটকের আগমন ঘটেছে। ঈদের দিন বিকেল থেকেই পর্যটকেরা কুয়াকাটাতে আসতে শুরু করেছেন। তবে গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে পর্যটকের সংখ্যা বহুগুণে বাড়তে শুরু করেছে। পুরো এলাকা যেন নতুন করে প্রাণ ফিরে পেয়েছে।

সরেজমিন কুয়াকাটা ঘুরে দেখা গেছে, সৈকতের জিরো পয়েন্টসংলগ্ন দু-দিকের অন্তত পাঁচ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে পর্যটকদের ব্যাপক উপস্থিতি রয়েছে। শিশু-কিশোরেরা যে যার মতো করে ছোটাছুটি করছে। সাগরের নোনা জলে নেমেছেন প্রায় সবাই। শুধু সৈকত নয়, এর আশপাশে বন বিভাগের জাতীয় উদ্যান, লেম্বুর চর, শুঁটকিপল্লি, মিশ্রীপাড়া বৌদ্ধমন্দির, রাখাইন মহিলা মার্কেটসহ আকর্ষণীয় সব পয়েন্টেই পর্যটক-দর্শনার্থীদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। পর্যটকদের আগমনের কারণে খাবার হোটেল, চায়ের দোকান, শামুক-ঝিনুকের দোকানগুলোতে প্রচুর বিক্রি হয়েছে। সৈকতের পাড়ের ফুচকার দোকান, বিভিন্ন প্রজাতির মাছের ফ্রাই বিক্রির দোকানগুলোতে ক্রেতার ভিড় লেগেই ছিল। সুযোগ বুঝে মাছের ফ্রাই বিক্রেতারা অতিরিক্ত মূল্য আদায় করে নিয়েছেন।

কুয়াকাটার আবাসিক হোটেল ব্যবসায়ীদের সূত্রে জানা গেছে, কুয়াকাটার ৫২টির মতো আবাসিক হোটেল-মোটেল রয়েছে। এর প্রতিটি কক্ষ ১৫ দিন আগেই বুকিং করে রাখা হয়েছে। ঈদের দিন বিকেল থেকেই বুকিং দেওয়া কক্ষে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পর্যটকেরা এসে উঠেছেন। আগামী শনিবার পর্যন্ত সব কটি হোটেল-মোটেলে এমন পরিস্থিতি থাকবে।

স্থানীয় অনেকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, একসময় কলাপাড়া থেকে কুয়াকাটা পর্যন্ত ২২ কিলোমিটার সড়কপথে ফেরি পারাপার ছিল চরম ভোগান্তির। এখানে তিনটি নদীর ওপর নির্মিত সেতু এক বছর আগে চালু হওয়ায় কুয়াকাটায় দিন দিন পর্যটকের সংখ্যা বেড়েই চলছে।

ফেরদৌস ইকবাল নামের একজন পর্যটক বলেন, যাতায়াত সহজ হওয়ায় এবং সময় কমে যাওয়ায় দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বাস, মাইক্রোবাস,

ব্যক্তিগত গাড়িতে করে খুব সহজেই পর্যটক-দর্শনার্থীরা কুয়াকাটায় আসতে পারছেন। তবে তিনি কুয়াকাটা সৈকতের অব্যবস্থাপনা, মোটরসাইকেলচালকদের বাড়াবাড়ি, হোটেল-মোটেলে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন।

ইসরাত জাহান নামের একজন পর্যটক জানান, হোটেলের কক্ষ ও খাবারের দাম অতিরিক্ত রাখা হচ্ছে।

কুয়াকাটা হোটেল-মোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোতালেব শরীফ বলেন, কুয়াকাটার হোটেল-মোটেলগুলো সারা বছরই বলতে গেলে খালি থাকে। বিশেষ দিনগুলোতে পর্যটকের আগমন ঘটে থাকে। সব হোটেল আবার অ্যাসোসিয়েশনভুক্ত নয়। অনেক হোটেলের লাইসেন্স নেই। যার কারণে সুযোগ বুঝে লাইসেন্স বিহীন হোটেলগুলো এবং নিম্ন মানের হোটেলের মালিকেরা কক্ষভাড়া একটু বেশি নেন। তবে সেটাও হওয়া উচিত নয় বলে মন্তব্য করেন তিনি।

ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকার বাসিন্দা মো. নাজমুল আহসানের মতে, দেশের পর্যটনশিল্পের বিকাশে কুয়াকাটার সৌন্দর্যবর্ধনে পদক্ষেপ নিতে হবে। তীব্র ভাঙনের মুখে পড়েছে কুয়াকাটা সৈকত। তা ছাড়া ইট-সুরকির ভাঙা অংশ এবং ময়লা-আবর্জনা চারদিকে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে আছে। যার ফলে যে-কারও পক্ষে সৈকত দিয়ে চলাফেরা করা কষ্টকর। এসব কারণে কুয়াকাটার সৌন্দর্য বহুলাংশে নষ্ট হয়ে গেছে।

আজমল খান ও রুনা খান দম্পতি অন্য এক সমস্যার কথা তুলে ধরলেন। তাঁরা বললেন, সৈকতে আসার পর থেকেই ফটোশিকারিদের উৎপাতের মুখে পড়েছেন। বাণিজ্যিক ভিত্তিতে ছবি তোলার কাজে নিয়োজিত এসব ফটোশিকারির কারণে নিজের মতো করে কোথাও বেড়ানো যায় না। যেখানেই যান, সেখানেই ছবি তোলার জন্য পিছু নেয়। এ ছাড়া মোটরসাইকেলচালকসহ বখাটেদের কারণেও হেনস্তা হতে হয়। রাতের বেলায় চলাফেরা করার জন্য সৈকতে কোনো আলোর ব্যবস্থা নেই। পর্যটকদের নিরাপত্তার স্বার্থে সৈকতজুড়ে দ্রুত আলোর ব্যবস্থা করার দাবি জানান তাঁরা।

এদিকে কুয়াকাটা পর্যটক পুলিশের পরিদর্শক মো. হারুন অর রশিদ বলেন, পর্যটকদের ব্যাপক আগমনের কারণে কুয়াকাটা সৈকতসহ পার্শ্ববর্তী স্পষ্টগুলোতে যাতে কোনো প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে, সে জন্য পর্যাপ্ত নিরাপত্তাব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

মো. হারুন অর রশিদ বলেন, মোটরসাইকেলচালকদের উৎপাত, ফটোশিকারিদের তৎপরতা সীমিত করার চিন্তা রয়েছে। সৈকতে গোসল করতে নেমে কেউ যাতে বিপদে না পড়ে, সে জন্য ওয়াটার বাইকসহ পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>