ক্ষমতাসীনরা ভুয়া সংগঠন বানিয়ে বরাদ্দ আত্মসাৎ করছে

ক্ষমতাসীনরা সারাদেশে ‘ভুয়া সংগঠন’ বানিয়ে সরকারি বরাদ্দ আত্মসাৎ করছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি।

রোববার দুপুরে নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সংম্মেলনে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এ অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, চলতি জুনে সারাদেশে জেলা-উপজেলায় ভুয়া প্রকল্পের মাধ্যমে শত শত কোটি টাকা লুটপাটের মহোৎসবের খবর গণমাধ্যমে এখন প্রধান শিরোনাম। মসজিদ-মন্দিরের নামে ভুয়া কমিটি তৈরি করে অথবা নামসর্বস্ব ধর্মীয় ও সামাজিক ক্লাব সংগঠন দেখিয়ে সরকারি বরাদ্দ নিজেদের পকেটে ঢুকাচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা।

রিজভী বলেন, ব্যাংক-বীমাসহ সকল আর্থিক প্রতিষ্ঠান গিলে ফেলে এখন তারা (আওয়ামী লীগ) মসজিদ-মন্দিরের টাকাও আত্মসাতে মেতে উঠেছে। লুটপাটের মাধ্যমে বিদেশে টাকার পাচার করে পুরো দেশটাকে ধ্বংস করেও ক্ষমতাসীনদের ক্ষুধা মিটছে না।

পত্রিকায় প্রকাশিত খবরের উদ্ধৃতি দিয়ে বিএনপির এই নেতা বলেন, মৌলভীবাজারে কুলাউড়া উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মোট ৬৭ কোটি ৬৫ হাজার ৪শ’ ৫৮ টাকা বরাদ্দ হয়। এর মধ্যে বরমচাল ইউনিয়নের ৮টি প্রকল্পে মোট ৫ লাখ ৪৭ হাজার টাকা বরাদ্দ হয়। লালমনিরহাটে চলতি অর্থবছর শেষে টিআর-কাবিখা প্রকল্পে ১০ কোটি টাকা লোপাট করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন রিজভী।

নতুন অর্থবছরের বাজেটকে গরীব মারার বাজেট

অভিহিত করে রুহুল কবির রিজভী বলেন, ঋণের বোঝা নিয়ে নতুন অর্থবছর শুরু হয়েছে। আজকে যে শিশুটি জন্মগ্রহণ করবে তার মাথায়ও ঋণের বোঝা পড়বে ৪৬ হাজার ১শ’ ৭৭ টাকা। বছরে বছরে এই ঋণের বোঝা শুধু বাড়ছেই।

‘দেশ অগ্রগতির দিকে যাচ্ছে’ বাজেট পাসের সমাপণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই বক্তব্যের সমালোচনা করে এই বিএনপির এই সিনিয়র মহাসচিব বলেন, প্রকৃত পক্ষে সরকার দেশকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের গুলশানে বাসায় গোয়েন্দা পুলিশের ঘিরে রাখার ঘটনার নিন্দা জানিয়ে রিজভী বলেন, এটা মুক্ত চিন্তা ও বাক-স্বাধীনতার ওপর চরম আঘাত।

মাহমুদুর রহমানকে কথা বলা ও তার লেখাকে নানাভাবে আটকানোর জন্য সরকার রাষ্ট্রশক্তির দমনযন্ত্র প্রয়োগ অব্যাহত রেখেছে বলেও মন্তব্য করেন রিজভী।

সম্প্রতি নোয়াখালীতে দলের ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহানের আয়োজিত ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে স্থানীয় ক্ষমতাসীনদের হামলার ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান রিজভী।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য তৈমুর আলম খন্দকার, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, কেন্দ্রীয় নেতা হাবিবুল ইসলাম হাবিব, আজিজুল বারী হেলাল, আবদুস সালাম আজাদ, আবদুল আউয়াল খান, শহীদুল ইসলাম বাবুল, আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ প্রমুখ।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>