গুগলের ৫টি ‘আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স’ পণ্য

মে ২৩ ২০১৭, ০০:৪৬

তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ে যারা খোঁজ-খবর রাখেন তারা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পর্কে কমবেশি জানেন। গত কয়েক বছরে এই খাতে আগ্রহ বেড়েছে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহারে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জন থেকে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো অনেক দূরে থাকলেও ধীরে ধীরে এ খাতে অগ্রগতি ঘটছে। গত সপ্তাহে অনুষ্ঠিত টেক জায়ান্ট গুগলের বার্ষিক ডেভেলপার সম্মেলনেও ছিল তার ছোঁয়া। এই সম্মেলনে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সংযোজিত বেশ কয়েকটি পণ্যের কথা জানিয়েছে গুগল। গুগলের পরিকল্পনা অনুযায়ী বাজারে আনতে পারলে আগামী দিনগুলোতে এই পণ্যগুলোই নিঃসন্দেহে রাজত্ব করবে প্রযুক্তি পণ্যের বাজারে।

গুগল লেন্স
গুগল লেন্স অ্যাপটি বাজারে আসতে এখনও দেরি আছে। কিন্তু সম্মেলনে এই অ্যাপকে ঘিরেই আলোচনা হয়েছে সবচেয়ে বেশি। ক্যামেরার লেন্সে ধরা পড়া বস্তুগুলো চিহ্নিত করতে পারবে এই অ্যাপ। অর্থাৎ, কেউ যদি তার স্মার্টফোনের ক্যামেরা দিয়ে কোনও ফুলের দিকে তাকান, লেন্স অ্যাপটি সেই ফুলের প্রকৃত নাম বলে দিতে পারবে। আবার ক্যামেরাটি দীর্ঘ পাসওয়ার্ড লেখা কোনও ওয়াইফাই রাউটারের স্টিকারে তাক করলে গুগল লেন্স বুঝতে পারবে এটি ওয়াইফাই পাসওয়ার্ড। তখন সে নিজে থেকেই পাসওয়ার্ডটি টাইপ করে ফেলবে। দীর্ঘ পাসওয়ার্ডটি টাইপ করতে হবে না ব্যবহারকারীকে।
শুধু তাই নয়, রেস্টুরেন্টের খাবারের মেন্যুও অনুবাদ করতে পারবে গুগল লেন্স। এমনকি কোন খাবার দেখতে কেমন, তা জানতে চাইলে ওই খাবারের ছবিও দেখাতে পারবে এই অ্যাপ।
একক ডেড্রিম হেডসেট

.

২
গত বছর ডেভেলপারদের বার্ষিক সম্মেলনে গুগল ডেড্রিম ভার্চুয়াল রিয়েলিটি (ভিআর) হেডসেটের ঘোষণা দিয়েছিল, যা দিয়ে কম খরচে ভার্চুয়াল রিয়েলিটির স্বাদ নিতে পারবেন স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা। ডেড্রিম নিয়ে অনেক বড় ঘোষণা আসার বাকি রয়েছে এখনও। তবে সম্মেলনে জানানো হয়েছে, নতুন ডেড্রিম হেডসেটটি স্যামসাংয়ের গ্যালাক্সি ডিভাইসের সঙ্গে কাজ করবে। গুগল আরও জানিয়েছে, দুই ধরনের ডেড্রিম হেডসেট বাজারে আনবে, যেগুলোতে কোনও স্মার্টফোন ব্যবহারের প্রয়োজন পড়বে না। এইচটিসি আর লেনোভো’র সঙ্গে এই প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে গুগল। নতুন এই ডেড্রিম হেডসেটটি ব্যবহারকারীর অবস্থান শনাক্ত করতে পারবে।
ধূর্ত ফটো টুলস
গুগলের ফটো অ্যাপসটি এখন ব্যবহার করছেন প্রায় ৫০ কোটি মানুষ। এটি জনপ্রিয় হওয়ার কারণ হচ্ছে ছবি দেখেই অনেক কিছু বুঝতে পারে অ্যাপটি। যেমন— জন্মদিনের কেক কিংবা পার্টিতে গ্রুপ মানুষের উপস্থিতি শনাক্ত করতে পরে এই ফটো অ্যাপ। এবার

গুগল এতে যুক্ত করতে যাচ্ছে নতুন সুবিধা। ফলে এর মাধ্যমে যেকোনও ছবি আরও দ্রুত ও সহজে শেয়ার করা যাবে। সম্মেলনে গুগলের পক্ষ থেকে বলা হয়, মানুষ অনেক ছবিই তুলছেন কিন্তু পরে এসব ছবি কোনও কাজে লাগছে না। ফলে এখন মুখ চিহ্নিত (ফেসিয়াল রিকগনিশন) করার প্রযুক্তি দিয়ে গুগল ফটোস ছবির মানুষকে চিহ্নিত করতে পারবে, স্থানটিও চিহ্নিত করবে। পাশাপাশি স্বয়ংক্রিয় পরামর্শ ভেসে উঠবে— ছবিতে আপনার বন্ধু অমুক রয়েছে। তাকে ছবিটি পাঠাতে পারেন।
ফটো লাইব্রেরি শেয়ারের মাধ্যমে ধাপটি আরও নতুন উচ্চতায় পৌঁছাবে। যেমন— আপনি বাচ্চার কোনও ছবি তুললে তা স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার জীবনসঙ্গীর কাছে চলে যাবে। অ্যাপটি ছবিতে থাকা মানুষকে চিহ্নিত করে নিজে নিজেই অ্যালবাম তৈরি করবে। কোনটা কার সঙ্গে শেয়ার করবেন, তা নির্বাচনেরও সুবিধা থাকবে। ফলে অযাচিত কেউ আপনার ছবি পাবে না। এমনকি ছবিতে কদাকার বা নোংরা কিছু থাকলে তা চিহ্নিত করে বাদ দিতে পারবে অ্যাপটি।
ভিপিএস (ভিজ্যুয়াল পজিশনিং সিস্টেম)

.

৪
অনেকেই জিপিএস প্রযুক্তির কথা জানেন। অবস্থান নির্ণয়ের অ্যাপটির বেশকিছু সীমাবদ্ধতার একটি হচ্ছে নিখুঁত অবস্থান নির্ণয় করতে না পারা। গুগল মনে করছে, ভিপিএস এই দুর্বলতা কাটিয়ে উঠবে। ট্যাঙ্গো নামের থ্রিডি ভিজুয়ালাইজেশন প্রযুক্তি ব্যবহার করে ভিপিএস ব্যক্তির আশপাশের বস্তুকে চিহ্নিত করে একেবারে সঠিক অবস্থান জানিয়ে দেবে। এমনকি কোনও বড় দোকানের মধ্যে নির্দিষ্ট পণ্য খুঁজে বের করাও সম্ভব ভিপিএস দিয়ে।
এই প্রযুক্তির বর্তমানে সবচেয়ে বড় সংকট হলো— খুব কম স্মার্টফোন আছে যেগুলোতে ট্যাঙ্গো প্রযুক্তি রয়েছে। ফলে এখ্নই ভিপিএস চালু হলেও খুব কম লোকই এই সুবিধা পাবেন। গত বছর লেনোভো ট্যাঙ্গো প্রযুক্তিসম্পন্ন একটি ডিভাইস বাজারে এনেছে। নতুন আরেকটি চলতি বছরে আসতে পারে।
গুগল হোম (আইফোনের জন্য সহকারী)

.

৫
গুগল হোম কোম্পানিটির ভার্চুয়াল সহকারী প্রযুক্তি। সম্প্রতি তা নতুন করে চালু হয়েছে, যদিও তা অ্যামাজনের অ্যালেক্সা ডিভাইসের চেয়ে পিছিয়ে রয়েছে। সম্মেলনে গুগল ঘোষণা দিয়েছে, সব সীমাবদ্ধতা কাটিয়ে নতুন রূপে নিয়ে আসা হবে গুগল হোম। এর ফলে হোম ব্যবহার করে ফোন করা যাবে, কণ্ঠ চিহ্নিত করার সুবিধা থাকায় পরিবারের অন্য সদস্যরাও একই হোম ডিভাইস দিয়ে ফোন করতে পারবেন। শুধু প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার বদলে এখন আরও সংশ্লিষ্ট তথ্য দেবে এটি।

Facebook Comments