ঘুর্ণিঝড় মোরা: কলাপাড়ায় দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরি সভা

কলাপাড়া প্রতিনিধি: ’ধেয়ে আসছে ঘুর্ণিঝড় মোরা’-এমন খবরে পটুয়াখালীর কলাপাড়ার উপকূলজুড়ে সাধারণ মানুষ শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। পায়রা সমুদ্রবন্দরসহ তৎসংলগ্ন এলাকায় পাঁচ নম্বর বিপদ সঙ্কেত দেখিয়ে যাওয়ার খবরে এ জনপদের মানুষ আরও শঙ্কায় পড়েছেন। কুয়াকাটা সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর মাঝারি ধরনের উত্তাল রয়েছে। সকল জেলেদের মাছ শিকার বন্ধ করে তীরে আসার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তবে এখনও প্রায় এক শ’ ফিশিং বোট গভীর সাগরে মাছ শিকারের জন্য অবস্থান করছে বলে মহিপুর মৎস্য আড়তমালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক নিমাই চন্দ্র দাস জানান। সোমবার শেষ বিকালে তিনি এখবর নিশ্চিত করে ওই ট্রলারগুলো সাগর থেকে ফিরে আসার নির্দেশনা দিয়েছেন। ঘুর্ণিঝড়ের খবরে কলাপাড়ায় উপজেলা দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি সোমবার সকাল ১০টায় এক জরুরি সভা করেছে। উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল মোতালেব তালুকদার সভাপতিত্ব করেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম সাদিকুর

রহমানসহ সরকারি কর্মকর্তারা এসময় উপস্থিত ছিলেন। এবিএম সাদিকুর রহমান জানান, বেড়িবাঁধের বাইরের লোকজন যাতে সহজে আশ্রয়কেন্দ্রে যেতে পারে এজন্য আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সভায় ঘুর্ণিঝড় আঘাত করতে পারে এমন শঙ্কায় প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেয়ার জন্য বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যানসহ সিপিপিরি সকল সদস্যদের সতর্ক থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি জনগণকে সতর্ক করতে প্রচারের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ঘুর্নিঝড়ের খবরে বাঁধ ভাঙ্গা জনপদ নিজামপুর, কোমরপুর, সদরপুর, পুরানমহিপুর, চারিপাড়া, চৌধুরীপাড়া, নাওয়াপাড়া, ব্যুরোজালিয়াসহ বিভিন্ন গ্রামের কৃষকসহ সাধারণ মানুষ রয়েছে চরম আতঙ্কে। ঘুর্ণিঝড়ের প্রভাবে কলাপাড়ায় বেলা দুইটা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অব্যাহত রয়েছে। কলাপাড়া আবহাওয়া অধিদপ্তরের ঘূর্নিঝড় পর্যবেক্ষন কেন্দ্রের কর্মকর্তা শাহ আলম জানান, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘুর্নিঝড়টি আরো ঘনীভূত হয়ে উপকূলের তিন’শ কি.মি. এর মধ্যে চলে আসেছে। এর কেন্দ্রে বাতাসের গতিবেগ রয়েছে ঘন্টায় ৬৫ কি.মি।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>