চ্যাম্পিয়নস ট্রফির আগে ‘ঐতিহাসিক’ জয়

মে ২৫ ২০১৭, ০০:৪১

‘মিনি বিশ্বকাপ’ খ্যাত চ্যাম্পিয়নস ট্রফি সামনে। নিজেদের ঝালিয়ে নেওয়ার জন্য ত্রিদেশীয় সিরিজকে ‘মোক্ষম’ মঞ্চ হিসেবে দেখছিল বাংলাদেশ। সেখানে প্রস্তুতিটা দারুণ হলো মাশরাফি মুর্তজাদের। চ্যাম্পিয়ন হতে না পারলেও চ্যাম্পিয়নস ট্রফির আগে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৫ উইকেটের ঐতিহাসিক জয় পেল বাংলাদেশ। ২৭১ রানের লক্ষ্যে তারা পৌঁছায় ১০ বল হাতে রেখে।

৮ জাতির পরের টুর্নামেন্টে নামার আগে নিশ্চিতভাবে এ জয় বাংলাদেশের জন্য অনুপ্রেরণার। কারণ দেশের বাইরে এবারই প্রথম কিউইদের হারাল তারা। দেশের মাটিতে নিউজিল্যান্ডকে বড় বড় লজ্জা দিলেও বিদেশে টাইগারদের পরিণতি ছিল উল্টো। এর আগে ২৯ ওয়ানডে খেলে বাংলাদেশের ৮টি জয়ের সবগুলো ছিল দেশের মাটিতে। ৩০তম ম্যাচে এসে কিউইদের বিপক্ষে দেশের বাইরে জিতেছে বাংলাদেশ, তাও আবার ব্যাটে বলে সমান নৈপুণ্য দেখিয়ে।

অথচ বাংলাদেশের বিপক্ষে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে বড় স্কোরের আভাস দিয়েছিল নিউজিল্যান্ড। ইনিংসের তৃতীয় বলে টম ল্যাথাম জীবন পেয়ে করেছেন হাফসেঞ্চুরি। তার ওই ক্যাচ ছেড়ে দেওয়া নাসির হোসেনই নেন উইকেটটি। দুইবার জীবন পেয়ে ইনিংস সেরা ৮৪ রান করে ল্যাথাম বোল্ড হন। দীর্ঘদিন পর জাতীয় দলে ফেরা নাসির অবশ্য আগের ওভারেই ব্রেকথ্রু আনেন। আরেক হাফসেঞ্চুরিয়ান নাইল ব্রুমকে (৬৩) তিনি মাঠছাড়া করেন মাশরাফির ক্যাচ বানিয়ে।

নাসিরের এ ২ উইকেট ম্যাচের ‘টার্নিং পয়েন্ট’ বলা যেতে পারে। যদিও রস টেলর সর্বোচ্চ চেষ্টা করে গেছেন। নিউজিল্যান্ডকে ২৭০ রানে বেধে দিতে পরে অবদান রাখেন সাকিব আল হাসান ও মাশরাফি। কোরি অ্যান্ডারসনকে (২৪) মাহমুদউল্লাহর ক্যাচ বানান সাকিব। এর পর মাত্র ২ রানের ব্যবধানে টানা ৩ ওভারে ৩ উইকেট হারায় নিউজিল্যান্ড। মাশরাফি তার দুই ওভারে ২ উইকেট নেন জিমি নিশাম ও কলিন মুনরোকে ফিরিয়ে। মাঝে সাকিব বোল্ড করেন মিচেল স্যান্টনারকে।

দুই ওভার বাকি থাকতে রুবেল হোসেনের বলে নিউজিল্যান্ডের অষ্টম উইকেটের পতন হয়। ম্যাট হেনরিকে বোল্ড করেন তিনি। শেষ ওভারে মাহমুদউল্লাহর হাতে জীবন পাওয়া টেলর অপরাজিত ছিলেন ৬০ রানে।

নাসিরের সমান

২টি করে উইকেট নেন মাশরাফি ও সাকিব।

৮ উইকেটে নিউজিল্যান্ডকে ২৭০ রানে আটকে দেওয়ার পর শুরুতেই হোঁচট খায় বাংলাদেশ। যদিও প্রথম বলেই ছক্কা মেরে দারুণ শুরুর ইঙ্গিত দেন তামিম। কিন্তু তৃতীয় বলে সৌম্যকে আউট করেন জিতান প্যাটেল। নিজের প্রথম বলে কোরি অ্যান্ডারসনকে ক্যাচ দেন তিনি।

এর পর তামিমকে উপযুক্ত সঙ্গ দেন সাব্বির। দুজনে বেশ দেখেশুনে ব্যাটিং করছিলেন। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের জয়ের দিন ৪৭ রানে আউট হওয়া তামিম ক্যারিয়ারের ৩৬তম হাফসেঞ্চুরি পান ৫৩ বল খেলে। সাব্বির তাকে অনুসরণ করে ৬৪ বলে পঞ্চম হাফসেঞ্চুরি হাঁকান।

কিন্তু তাদের ১৩৬ রানের জুটি ভাঙে তামিম ৬৫ রানে স্যান্টনারের শিকার হলে। এক ওভার পেরোতেই রান আউট হন সাব্বির, তিনিও করেন ৬৫ রান। পরের বলে মোসাদ্দেককে (১০) এলবিডব্লিউ করে নিজের দ্বিতীয় শিকার বানান প্যাটেল।

মাত্র ১৭ রানের ব্যবধানে ৩ উইকেট হারানোর পর মুশফিক ও সাকিবের ব্যাটে স্বস্তিতে ফেরে বাংলাদেশ। তাদের জুটি যদিও ভেঙে যায় মাত্র ৩৯ রানে। সাকিব ১৯ রানে আউট হন। আর পথ হারায়নি বাংলাদেশ। মাহমুদউল্লাহ ও মুশফিকের ব্যাটে এগিয়ে গেছে তারা।

দুইজনের অর্ধশতাধিক রানের জুটিতে জয় পায় বাংলাদেশ। মুশফিক ৪৫ ও মাহমুদউল্লাহ ৪৬ রানে অপরাজিত ছিলেন। মুশফিকের ইনিংস ৪৫ বলে সাজানো, ৩টি চার ও ১ ছয় তার। তবে তার চেয়ে এগিয়ে ছিলেন মাহমুদউল্লাহ। ৩৬ বলে ৬ চার ও ১ ছয় মেরেছেন তিনি। তাদের জুটিটি ছিল ৭২ রানের। ৪৮.২ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে তারা লক্ষ্যে পৌঁছায়।

সিরিজে এটি বাংলাদেশের টানা জয়। প্রথম ম্যাচ বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হলে ২ পয়েন্ট ভাগাভাগি করে বাংলাদেশ ও আয়ারল্যান্ড। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশ হেরে যায় ৪ উইকেটে।  পরের দেখায় আয়ারল্যান্ডকে মাশরাফিরা হারায় ৮ উকেটে। কিন্তু পরের ম্যাচে আইরিশদের হারিয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখে সিরিজের চ্যাম্পিয়ন হয় নিউজিল্যান্ড। তাদের হারিয়েই চ্যাম্পিয়নস ট্রফি খেলতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচে ১ জুন তারা মুখোমুখি হবে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>