‘জান দেবো তবু জমি দেব না’

আপডেট : July, 22, 2017, 11:21 pm

নলছিটি প্রতিনিধি: ঝালকাঠির নলছিটি উপজলার দপদপিয়া ইউনিয়নের পূর্বচরে ‘সাইট এন্ড সার্ভিসেস আবাসিক প্লট উন্নয়ন প্রকল্পের’ জন্য জমি অধিগ্রহন না করার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। সরকারি এ প্রকল্পের আওতায় পূর্বচরের প্রায় ১৪ একর জমি অধিগ্রহণের জন্য জমির মালিকদের নোটিশ দেওয়া হয়েছে। এতে ক্ষোভে ফুঁসে উঠেছে জমির মালিকরা। ‘জান দেব তবু জমি দেব না’ এমন প্লেকার্ড ও ব্যানার নিয়ে শনিবার বিকেলে বরিশাল-পটুয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কের খয়রাবাদ সেতু এলাকায় পূর্বচরের বাসিন্দারা মানববন্ধন করেন। বিকেল চারটা থেকে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য রাখেন পূর্বচরের বাসিন্দা মো. শাহজাহান দুরানী, মো. নূরে আলম বাবুল, মো. হাবিবুর রহমান, জহির উদ্দিন বাবর, প্রাণ কৃষ্ণ বিশ্বাস, জাকির হোসেন ও মো. নাসির উদ্দিন।
বক্তারা অভিযোগ করেন, পূর্বচরে দীর্ঘ দিনধরে তাঁরা বসবাস করছেন। এখানে তাদের প্রায় ১৪ এক জমিতে ফসলের চাষ হচ্ছে। এই জমির মালিকরা বেশিরভাগই গরিব ও অসহায়। গত ২ জুলাই ঝালকাঠি জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে ভূমি অধিগ্রহন করার জন্য তাদের একটি নোটিশ দেওয়া হয়। নোটিশে জানানো হয় ‘নলছিটি উপজেলায় সাইট এন্ড সার্ভিসেস আবাসিক প্লট উন্নয়ন প্রকল্প’ নির্মানের লক্ষে

জমি অধিগ্রহন করা হবে। নোটিশপ্রাপ্তির ১৫ দিনের মধ্যে জমি অধিগ্রহনের বিরুদ্ধে সম্পত্তির মালিকদের আপত্তি দিতে পারবেন বলে জানানো হয়। ঝালকাঠি ভূমি অধিগ্রহন কর্মকর্তা বকুল চন্দ্র কবিরাজ ও সার্ভেয়ার মো. সাহাবউদ্দিন সরদার স্বাক্ষরিত এই নোটিশ পেয়ে বিমূর্ষ হয়ে পড়েন পূর্বচরের বাসিন্দারা। তারা সরকারকে এ জমি না নেওয়ার জন্য দাবি জানান। জোরপূর্বক জমি অধিগ্রহন করতে চাইলে প্রয়োজনে জীবন দিয়ে দেওয়ারও ঘোষণা দেন মানববন্ধনে উপস্থিত শতাধিক নারী-পুরুষ।
পূর্বচরের শাহজাহান দুরানী বলেন, এখানে অনেক গবির ও অসহায় মানুষের জমি রয়েছে। চাষাবাদ করে তারা সংসার চালায়। সরকার জলাশয় ও কৃষি জমি অধিগ্রহণ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এরপরও এখানে একটি হাউজিং প্রকল্প করার জন্য জমি নিতে চাইছেন কেন? আমরা কোন অবস্থাতেই এই জমি দিবো না। সরকারের কাছে আমাদের অনুরোধ এই প্রকল্পের জন্য আপনারা খাসজমি ব্যবহার করুন। আমাদের মারবেন না।
স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. নূরে আলম বাবুল বলেন, আমাদের জমি রক্ষা করতে প্রয়োজনে আন্দোলন করা হবে। জন্মভিটা থেকে এভাবে উচ্ছেদ করা মেনে নেব না। সরকারি অনেক খাসজমি রয়েছে, সেগুলোতে হাউজিং করুন, গরিবের মাথা গোজার ঠাই নষ্ট করবেন না।

 

 

Facebook Comments