ঝালকাঠিতে সরকারি স্কুলে ভাঙ্গাড়ির রড দিয়ে ছাদ ঢালাইয়ের চেষ্টা

আপডেট : June, 30, 2017, 6:09 pm

ঝালকাঠি: ঝালকাঠি সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবনের নির্মানকারী ঠিকাদার পুরাতন ভবন ভেংগে বের হওয়া ভাংগারী রড দিয়ে নতুন ছাদ ঢালাই দেয়ার প্রচেষ্টা চালানোর চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে। ঈদের বন্ধে সকলের অজ্ঞাতে অর্থলোভী ঠিকাদার আনিছুর রহমান তড়িঘড়ি করে ভাংগারী রড দিয়ে সেন্টারিংয়ের কাজ শেষ করে ঢালাই দেয়ার চেষ্টা করলেও জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপে সেই পরিকল্পনা ভেস্তে গেছে। বিষয়টি দেখতে পেয়ে বিদ্যালয়ের কয়েকজন সচেতন সাবেক ছাত্র ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে ছবি আপলোড দিয়ে বিভিন্ন মন্তব্য তুলে ধরলে জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হকের নজরে পরলে দূর্নীতিবাজ ঠিকাদারের খায়েশ পন্ড হয়ে গেছে। বুধবার তিনি বিদ্যালয় পরির্শন করে সেন্টারিংয়ে ব্যবহৃত সমস্ত পুরাতন রড অপসারণ ও দূর্নীতিবাজ ঠিকাদারের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দিয়েছেন।
ঝালকাঠি শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়টির ছাদ ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় ভবন সংস্কারের জন্য কয়েক ধাপে দরপত্র আহ্বান করা হয়। বরিশালের জনৈক ঠিকাদার আনিছুর রহমান একাডেমিক ভবনের দোতলার বরান্দা ও করিডোর ভেঙ্গে নতুন করে ছাদ নির্মাণের টেন্ডার লাভ করে। কার্যাদেশ পেয়েই উক্ত ঠিকাদার রমজান মাসে বিদ্যালয় বন্ধ থাকার সুযোগে ছাদ ভাঙ্গার কাজ শুরু করে। এমন কি ঈদের আগ মুহুর্তে ছাদ ফেলে ঠিকাদার আনিছুর তড়িগড়ি পুরানো জ্বড়াজ্বীর্ন ভাংগারী রডগুলো দিয়েই ঢালাইয়ের জন্য সেন্টারিং সম্পন্ন করে ঢালাইয়ের প্রস্তুতী নেয়।
বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা যায়, বিদ্যালয় ভবনের দোতলায় বাঁশ কাঠ দিয়ে ডালাইয়ের জন্য সেন্টারিংয়ের কাজ সমাপ্ত করা হয়েছে

ও উপরে আরো কিছু জ্বড়াজ্বীর্ন ভাংগারী রড সাজিয়ে রাখা হয়েছে। তবে সুচতুর ঠিকাদার তার এ অপকর্ম আড়াঁল করতে মূল ভবনের সামনে সামন্য কিছু নতুন রড ‘স্যাপ¥ল’ হিসাবে রেখে দিয়েছে। এ সময় কাজের স্থানে ঠিকাদার ও নির্মাণ শ্রমিকদের দেখা গেলেও সাংবাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে দ্রুত তারা নির্মানস্থল থেকে সটকে পড়েন।
এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল চন্দ্র শর্মার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগ বিদ্যালয়ের কাজ করালেও কত টাকা বাজেট, কি কাজ করা হচ্ছে এসব বিষয়ে আমাদের কিছুই জানায় না। এমনকি কাজ শেষে প্রতিষ্ঠান প্রধান হিসাবে আমাদের কাছ থেকে কোন ছাড়পত্র নেয়ারও প্রয়োজন মনে করে না। বিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মচারীরা ঈদের ছুটিতে থাকায় ঠিকাদার কৌশলে পুরাতন রড দিয়ে ছাদ ঢালাইয়ের চেষ্টা চালায়। বিষয়টি অমানবিক এবং ঝুঁকিপূর্ণ।
এ বিষয়ে ঝালকাঠি শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের উপ-সহকারি প্রকৌশলী এইচ.এম আব্দুর রহমান জানান, বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে। পুরাতন রড দিয়ে ছাদ ঢালাইয়ের কোন সুযোগ নেই। এ ব্যাপারে ঠিকাদারকে দ্রুত পুরাতন রড সরিয়ে ফেলতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তবে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে কিনা সে বিষয়টি এড়িয়ে গেছে।
এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হক জানান, বিষয়টি অবহিত হয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে চিঠি দিয়েছি। পাশাপাশি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে কাজ মনিটরিং কমিটি করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পুরাতন রড অপসারণ করেই নতুন রড দিয়ে ছাদের ঢালাই করা হবে। আমি নিজেও বিষয়টি নজরদারিতে রাখব।

Facebook Comments