তপ্ত নগরীর লাল সুন্দরী

মে ১০ ২০১৭, ১২:৫০

ঢাকাকে কি গ্রীষ্ম-সুন্দরী বলা যায়? রাজপথের দুপাশে জারুল, সোনালু, কণকচূড়া, রাধাচূড়া ফুলের দেখা তো গ্রীষ্মেই মেলে। তবে কংক্রিটের ছাই রঙের ঢাকাকে রূপসী করে তুলতে কৃষ্ণচূড়ার অবদানই সবচেয়ে দৃশ্যমান। এই ফুল নিয়ে তাই নাগরিক-আহ্লাদটাও যেন বেশি। দিন পনেরো ধরে ফেসবুকের পাতা খুললেই চোখে পড়ছে এই আগুনরঙা ফুলের ছবি। গণমাধ্যমেও এ মৌসুমের তারকা-ফুল কৃষ্ণচূড়া।
এই আবেগ-ভালোবাসার কৃষ্ণচূড়া কিন্তু বাংলা মুল্লুকে এসেছে মাত্র শ তিনেক বছর আগে। দ্বিজেন শর্মার লেখায় পাই, আফ্রিকার মাদাগাস্কার থেকে উনিশ শতকের প্রথম দিকে এই গাছ প্রথমে ইউরোপ, তারপর উপমহাদেশে আসে।
উদ্ভিদবিজ্ঞানীদের দেওয়া কৃষ্ণচূড়ার নাম ডেলোনিখ রেজিয়া (Delonix regia)। কিন্তু বাংলায় এসে বদলে গেছে নামও। কৃষ্ণচূড়ার ‘কৃষ্ণচূড়া’ হয়ে ওঠার একটা ব্যাখ্যা পাওয়া যায় আমিরুল আলম খানের পারুলের সন্ধানে বইয়ে। তিনি বলছেন, ১৭ শতকের এক রাজকবি দেবতা কৃষ্ণের মাথার চূড়ার বর্ণনায় রক্তবর্ণ ফুলের সঙ্গে একে তুলনা করেছেন। আমিরুল আলমের মতে, কোনো কাব্যরসিক হয়তো সেই বর্ণনা থেকে কৃষ্ণচূড়া নাম রেখে থাকবেন।
এখন ঢাকার যেকোনো এলাকায় গিয়ে ঘাড় ঘুরিয়ে ডানে-বাঁয়ে তাকালে

কৃষ্ণচূড়া নজরে পড়বেই। তবে বিমানবন্দর সড়ক, হাতিরঝিল, চন্দ্রিমা উদ্যান আর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় এর সংখ্যা আর শোভা একটু বেশি।
গতকাল দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনের চারতলার বারান্দায় কৃষ্ণচূড়ার শোভা দেখছিলেন এক যুগল। নাম বলতে চাইলেন না, তবে কৃষ্ণচূড়া নিয়ে তাঁদের ভালো লাগার কথা জানালেন খোলা মনে। মেয়েবন্ধুটি বললেন, ‘আমাদের গায়েহলুদে কৃষ্ণচূড়ার গয়না পরব কিন্তু!’
ভালো কথা, কবিতায়-গানে কৃষ্ণচূড়া বসন্তের ফুল হিসেবে ধরা দিলেও আদতে এটা কিন্তু গ্রীষ্মের ফুল। দ্বিজেন শর্মা তাঁর নিসর্গ, নির্মাণ ও নান্দনিক ভাবনায় বলেছেন, বসন্তে কৃষ্ণচূড়া ফোটে না। আর ফুলের বাজারে কিন্তু কৃষ্ণচূড়া বিকোয় না।
কয়েক বছর ধরে ঢাকায় রীতিমতো আয়োজন করে কৃষ্ণচূড়ার সৌন্দর্য উপভোগের চল শুরু হয়েছে। তরুণ লেখকদের একটি দল ২০১১ সাল থেকে শুরু করেছে ‘কৃষ্ণচূড়া আড্ডা’। ‘ঢাকা কৃষ্ণচূড়া ব্লজোমস’ নামে একটি ফেসবুক গ্রুপের উদ্যোগে ঢাকার ক্রিসেন্ট লেক এলাকায় ৫ মে থেকে শুরু হয়েছে ‘বাংলাদেশ কৃষ্ণচূড়া ব্লজোমস ফেস্টিভ্যাল’। চলবে ১২ মে পর্যন্ত। ‘কৃষ্ণচূড়া উৎসব’ নামে ১২ মে সকাল সাতটা থেকে আরেকটি আয়োজনের খবরও ভাসছে ফেসবুকের পাতায়।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>