তিন মামলায় পলিটেকনিকের ছাত্রলীগ নেতা ফাহিমসহ ১৩ ছাত্র কারাগারে

মে ২৫ ২০১৭, ২২:২৮

বরিশাল সরকারি পলিটেকনিক ইনিষ্টিটিউটের ছাত্র অপহরন করে ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপন দাবি এবং পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় আটককৃত ২৫ জনের মধ্যে ১৩ ছাত্রকে গ্রেফতার দেখিয়ে বৃহস্পতিবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। অপহরন, নির্যাতন এবং চাঁদাদাবির অভিযোগে অপহৃত ছাত্র পলিটেকনিকের ইলেকট্রিক্যাল বিভাগের ৭ম সেমিস্টারের ছাত্র দীপ কুমার পাল মামলা দায়ের করে। এছাড়া সরকারি কাজে বাধা ও পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে আরো দু’টি মামলা দায়ের করেছে। সকল মামলায় ওই ১৩ জনকে আসামী দেখানো হয়। এছাড়া মামলায় আরো বেশ কিছু শিক্ষার্থীদের অজ্ঞাতনামা আসামী করা হয়। তিন মামলার গ্রেপ্তারকৃত আসামীরা হচ্ছে ঃ মেকানিক্যাল বিভাগ ৭ম পর্বের ছাত্র আসাদুজ্জামান ফাহিম, কম্পিউটার বিভাগ ৭ম পর্ব ১ম শিফট হাসিব ও কাওসার, সিভিল ৭ম পর্ব ২য় শিফট আল-আমিন, সিভিল, ৭ম পর্ব ১ম শিফট অরুপ হাওলাদার, ইলেকট্রিক্যাল ৭ম পর্ব ১ম শিফট রেজবী, মেকানিক্যাল ৭ম পর্ব ১ম শিফট জহিরুল ইসলাম, ইলেকট্রিক্যাল ৭ম পর্ব ২য় শিফট শাহাদাত হোসেন, পাওয়ার ৭ম পর্ব ২য় শিফট শাওন মৃধা, ইলেকট্রিক্যাল ৭ম পর্ব ১ম শিফটের আব্দুল্লাহ আল মাহামুদ, ইলেকট্রিক্যাল, ৪র্থ পর্ব ২য় শিফট আবরার আমম্মেদ আবীর, সিভিল টেকনোলজি ৭ম পর্ব ১নং শিফট অনঙ্গ বড়াল। পলাতক আসামীরা হচ্ছে ঃ ইলেকট্রনিক,

৭ম পর্ব ১ম শিফট হিমেল, মেকানিক্যাল ৪র্থ পর্ব ১ম শিফট হাসান, মেকানিক্যাল নিসাত, ইলেকট্রনিক্স, ৭ম পর্ব ২য় শিফট অভিক, ইলেকট্রনিক্স, ৭ম পর্ব ১ম শিফট অনিক। বরিশাল মেট্রোপলিটন কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি শাহ মো. আওলাদ হোসেন জানান, ঘটনাস্থল হতে যাদের আটক করা হয়েছে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে ১৩ জনের সম্পৃক্ততার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। যে কারনে ১৩ জনকে মামলার আসামী করা হয় । বাকিদের পুলিশি নজরদারীতে রাখা হয়েছে। তিনি বলেন, গত বুধবার রাতে দীপ কুমার বাদী হয়ে ছাত্রলীগ নেতা আসাদুজ্জামান ফাহিমসহ তার সহযোগিদের আসামী করে একটি মামলা এবং সরকারি কাজে বাধা ও পুলিশ আহত হওয়ার ঘটনায় দুই পুলিশ বাদী হয়ে আরো দু’টি মামলা দায়ের করে। দায়েরকৃত মামলায় আসামীদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। উল্লেখ্য গত বুধবার নগরীর নথুল্লাবাদ থেকে ছাত্রলীগ নেতা ফাহিম ও তার সহযোগিরা দীপকে অপহরণ করে পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের প্রধান ছাত্রাবাসের পঞ্চম তলায় ৫০১ নম্বর রুমে আটকে রেখে শারীরিক নির্যাতন চালিয়ে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা আদায়ে দীপকে জবাই করার চেষ্টা চালায় ফাহিম। বিকেলে পুলিশ অভিযান চালিয়ে দীপকে উদ্ধার এবং ফাহিমকে আটক করে। এ সময় উচ্ছৃংখল ছাত্ররা পুলিশের হামলা চালালে এক পুলিশ আহত হয়। আটক করা হয় আরো ২৫ জনকে।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>