তিস্তায় তীব্র ভাঙন, নদীগর্ভে দেড়শ’ ঘর

জুলাই ১২ ২০১৭, ২৩:৪৮

ডেস্ক রিপোর্টঃ রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলায় তিস্তা নদীতে বন্যার পানি কিছুটা কমার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয়েছে তীব্র ভাঙন। এরই মধ্যে তিস্তা গর্ভে চলে গেছে দেড়শ’র মত ঘর-বাড়ি। এছাড়াও একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভাঙনের হুমকির মুখে রয়েছে।

বুধবার উপজেলার নোহালী, লক্ষ্মীটারী, কোলকোন্দ, আলমবিদিতর ইউনিয়নের তিস্তা তীরবর্তী এলাকায় গিয়ে দেখা যায় ভাঙনকবলিত পরিবারগুলোর করুণ চিত্র। নোহালী ইউনিয়নের চর নোহালী গ্রামের প্রায় একশ’ ঘর-বাড়ি তিস্তায় বিলীন হয়ে গেছে। আরও ৫০টি বাড়ি ভাঙনের হুমকির মুখে রয়েছে। কোলকোন্দের সাউদপাড়া, আলমবিদিতরের পাইকান ব্যাঙপাড়া, হাজীপাড়া গ্রামের ৫০টি ঘর-বাড়ি ভাঙনের কবলে পড়েছে। এছাড়া লক্ষ্মীটারী ইউনিয়নের চর শংকরদহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার হুমকির মুখে রয়েছে। ভাঙনকবলিত পরিবারগুলো ঘর-বাড়ি হারিয়ে

খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবন-যাপন করছে।

নদী ভাঙনের কবলে সবকিছু হারিয়ে নিঃস্ব হওয়া নোহালী ইউনিয়নের চর নোহালী গ্রামের আয়নাল মিয়া, জয়নাল আবেদীন, অপিল মিয়া ও মোকলেছ আলম বলেন, ‘বন্যার পানি কিছুটা কমার সঙ্গে সঙ্গেই বেড়েছে ভাঙনের তীব্রতা। আমাদের ঘর-বাড়ি তিস্তার পেটে চলে গেছে। আমরা ঘর-বাড়ির আসবাবপত্রসহ মালামাল সরানোর সময় পর্যন্ত পাইনি।’

নোহালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ টিটুল জানান, ভাঙনকবলিতদের ব্যক্তিগতভাবে নগদ টাকা ও শুকনো খাবার দিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে তিনি ভাঙনকবলিতদের দ্রুত সহযোগিতা দেওয়ার জন্য প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানান।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বাবুল চন্দ্র রায় বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর তালিকা করে পাঠানো হয়েছে। বরাদ্দ এখনও পাওয়া যায়নি। বরাদ্দ এলে প্রদান করা হবে।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>