নেপথ্যে সরোয়ার-শিরিন দ্বন্দ্ব!

মে ০৪ ২০১৭, ১০:২৯

বরিশাল মহানগর যুবদলের সদ্য ঘোষিত কমিটি নিয়ে দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ, অসন্তোষ অব্যাহত আছে। এরই মধ্যে নতুন কমিটির বিরুদ্ধে পদবঞ্চিতরা বিক্ষোভ করেছেন। এমনকি নগর ও জেলা বিএনপির কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দেওয়ার ঘটনাও ঘটেছে।

এই অসন্তোষের নেপথ্যে বিএনপির দুই কেন্দ্রীয় নেতা মজিবুর রহমান সরোয়ার ও বিলকিছ আক্তার জাহান শিরিনের হাত রয়েছে বলে দলের মধ্যে এমন আলোচনাও আছে। নগর বিএনপির রাজনীতির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে এই দুই নেতার মধ্যে ঠান্ডা লড়াই আছে বলে মনে করেন দলের অনেক নেতা-কর্মী। যুবদলের কমিটি গঠন নিয়ে এই লড়াই জোরদার হয়েছে।

দৈনিক প্রথম আলোতে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, এরই মধ্যে মজিবুর রহমান সরোয়ার সদ্য ঘোষিত মহানগর কমিটি বাতিলের দাবি জানিয়েছেন। তিনি প্বলেন, ‘নগর যুবদলের যে কমিটি করা হয়েছে, তাতে তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের মতামত নেওয়া হয়নি। সভাপতি হিসেবে যাকে (আক্তারুজ্জামান শামীম) পদ দেওয়া হয়েছে, তাঁকে গত আট বছরে মাঠের কোনো কর্মসূচিতে দেখিনি। তাহলে কোন বিবেচনায় তাঁকে পদ দেওয়া হলো?’

দলীয় সূত্র জানায়, আক্তারুজ্জামান শামীম বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিছ আক্তার জাহান শিরিনের অনুসারী হিসেবে পরিচিত। এ জন্য তিনি নগর যুবদলের সভাপতির পদ পাওয়ায় মজিবুর রহমান সরোয়ার ও তাঁর অনুসারীরা তাঁকে মানতে পারছেন না। আর এর সূত্র ধরেই এই দ্বন্দ্ব ও অসন্তোষ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলের অন্তত তিনজন নেতা জানান, একসময় বরিশাল নগর বিএনপির রাজনীতিতে মজিবুর রহমান সরোয়ারের সঙ্গে বর্তমান মেয়র আহসান হাবিব কামালের দ্বন্দ্ব ছিল খুব আলোচিত। কিন্তু গত সিটি করপোরেশন নির্বাচনের সময় আহসান হাবিব কামাল মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার পর দুই নেতা দ্বন্দ্ব মিটিয়ে একসঙ্গে কাজ করেন। আহসান হাবিব কামাল মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর তিনি দলীয় কর্মকাণ্ড থেকে একেবারেই বিচ্ছিন্ন। এতে নগর বিএনপির রাজনীতিতে মজিবুর রহমান সরোয়ারের একচ্ছত্র আধিপত্য নিশ্চিত হয়। তবে কেন্দ্রীয় বিএনপির সম্মেলনে বিলকিছ আক্তার জাহান শিরিন কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক পদ পাওয়ার পর তিনিও নগর ‍বিএনপির রাজনীতিতে নিজস্ব বলয় সৃষ্টির চেষ্টা চালাচ্ছেন। তাঁর সঙ্গে আছেন সরোয়ারবিরোধী সাবেক কয়েকজন নেতা। এতে ভেতরে-ভেতরে এই দুই নেতার মধ্যে দ্বন্দ্ব

দেখা দেয়। নগর যুবদলের কমিটি নিয়ে এই দ্বন্দ্ব অনেকটা সামনে চলে এসেছে।

দলীয় সূত্র জানায়, বরিশাল সিটি করপোরেশনের নির্বাচন হতে আরও দেড় বছর বাকি। এই নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হতে পারেন মজিবুর রহমান সরোয়ার। তিনি বরিশাল সিটির প্রথম মেয়র ও চারবার বরিশাল সদর আসনের সাংসদ ছিলেন। অপরদিকে বিলকিছ আক্তার জাহান শিরিনও আগামী নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী হতে চান। মূলত এ নিয়েই দুই নেতা নগর বিএনপির রাজনীতিতে তাঁদের অবস্থান পাকাপোক্ত করতে নেপথ্যে কাজ করছেন।

বিএনপিতে মজিবুর রহমান সরোয়ারবিরোধী হিসেবে একসময় পরিচিত ছিলেন বর্তমানে বরিশাল দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি এবায়দুল হক চাঁন। তিনি বলেন, দলের এই দুর্দিনে যাঁরা বিএনপি কার্যালয়ে তালা ঝোলান, তাঁরা কি প্রকৃতপক্ষে বিএনপির ভালো চান? আক্তারুজ্জামান শামীম ছাত্রদলের একসময়ের সক্রিয় নেতা ছিলেন। এখন তাঁকে যুবদলের সভাপতি করার পর তাঁর সম্পর্কে নানা কথা বলা হচ্ছে এবং বলা হচ্ছে তৃণমূল কর্মীদের মধ্যে এ নিয়ে ক্ষোভ আছে। আসলে এটা অজুহাতমাত্র। মূল কথা হলো, যখন যাঁদের ভাগে কম পড়ে, তখন তাঁরা উল্টাপাল্টা বকেন।

এ বিষয়ে বিলকিছ আক্তার জাহান শিরিন  বলেন, আক্তারুজ্জামান শামীম নব্বইয়ে বরিশালে স্বৈরাচারবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের নায়ক। বিএম কলেজের জিএস ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের নেতা ছিলেন। এত কিছুর পরও একজন রাজনৈতিক কর্মীর ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলা দুঃখজনক। কারও নাম উল্লেখ না করে তিনি বলেন, ‘আক্তারুজ্জামান শামীম এত দিন মাঠে ছিল না বলে আজ যাঁরা প্রশ্ন তুলছেন, তাঁরা কে কতটুকু মাঠে ছিলেন? অনেক নেতাই বর্তমান সরকারের আমলে বরিশালের রাজপথে ছিলেন না। তাঁরাও তো বড় দলীয় পদ-পদবি পেয়েছেন। আর সেক্রেটারি পদে যাঁকে দেওয়া হয়েছে, তিনি তো সরোয়ার ভাইয়ের লোক।’

প্রসঙ্গত দীর্ঘ ১৮ বছর পর গত ২৭ এপ্রিল বরিশাল দক্ষিণ জেলা যুবদল এবং ৮ বছর পর মহানগর যুবদলের নতুন কমিটির অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্রীয় কমিটি। আক্তারুজ্জামান শামীমকে সভাপতি, কামরুল আহসানকে জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি, মাকসুদুর রহমানকে সহসভাপতি, মাসুদ হাসান মামুনকে সাধারণ সম্পাদক, মাজাহারুল ইসলাম ও শহিদুল হাসানকে যুগ্ম সম্পাদক এবং মিজানুর রহমানকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে মহানগর যুবদলের সাত সদস্যের কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>