নো বিসিএস নো ক্যাডার- দাবি আদায় না হলে বৃহত্তর কর্মসূচি দেওয়ার হুঁশিয়ারি

অক্টোবর ২২ ২০১৭, ২০:৫৮

জাতীয়করনের লক্ষ্যে ঘোষিত বেসরকারী কলেজের শিক্ষকদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন, নন ক্যাডার ও জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০ এর নির্দেশনা অন্তর্ভুক্ত করে বিধিমালা জারির দাবি জানিয়েছে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি। রবিবার দুপুরে বরিশাল প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় এই দাবি জানান বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি বরিশাল জেলা শাখার সভাপতি অধ্যাপক সচিন কুমার রায় এবং সম্পাদক সহযোগী অধ্যাপক মো. আক্তারুজ্জামান খান। মতবিনিময় সভায় উপস্থাপনা করেন রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক এম এম তারিকুজ্জামান।

লিখিত বক্তব্যে সমিতির জেলা সম্পাদক মো. আক্তারুজ্জামান বলেন, জাতীয়করণকৃত কলেজের শিক্ষকগণ ক্যাডারভুক্ত হলে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে নতুন প্রজন্মের মেধাবী শিক্ষকরা মারাত্বকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবেন এবং ভবিষ্যতে শিক্ষা ক্যাডারে কোনভাবেই মেধাবীদের আকর্ষণ করা যাবে না। এছাড়া আগামী প্রজন্ম মান সম্পন্ন শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হবেন।

তাই সরকারের কাছে জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০ এর আলোকে সরকারিকরণের জন্য প্রস্তুতকৃত কলেজ শিক্ষকদের ক্যাডার বহির্ভূত করে তাদের চাকরি প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন অনুযায়ী স্ব-স্ব

কলেজে সু-নির্দিস্ট করে আগামী ১৬ নভেম্বরের মধ্যে বিধিমালা জারি করার দাবি জানানো হয়। একই সাথে কলেজ জাতীয়করণের প্রজ্ঞাপন জারির পূর্বেই বিধিমালা জারি, কর্মকমিশন কর্তৃক গৃহীত বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগ ব্যতিত অন্য কোন মাধ্যমে কাউকে ক্যাডারভুক্ত না করা এবং সম্প্রতি সরকারীকরণকতৃ ১২টি মডেল কলেজের শিক্ষকদেরও অনুরূপ বিধিমালার আওতায় আনার দাবি জানানো হয় লিখিত বক্তব্যে।

১৬ নভেম্বরের মধ্যে এই দাবি আদায় না হলে আগামী ১৭ নভেম্বর ঢাকায় বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি মহাসমাবেশ ডেকে পরবর্তী কঠোর কর্মসূচি ঘোষণার হুশিয়ারি দেওয়া হয় মতবিনিময় সভায়।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি কেন্দ্রিয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব সরদার আকবর আলী, বিএম কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অধ্যাপক স্বপন কুমার পাল, বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি বরিশাল জেলা শাখার সভাপতি অধ্যাপক সচিন কুমার রায় এবং সম্পাদক সহযোগী অধ্যাপক মো. মো. আক্তারুজ্জামান খানসহ জেলার বিভিন্ন কলেজে কর্মরত বিসিএস শিক্ষকগন উপস্থিত ছিলেন।

Facebook Comments