পবিপ্রবি’তে ছাত্রলীগের হামলায় সাংবাদিকসহ আহত ১০

আপডেট : May, 22, 2017, 3:17 pm

পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে রবিবার রাতে সংবাদ সংগ্রহকালে ছাত্রলীগের হামলায় দৈনিক ইত্তেফাকের বিশ্ববিদ্যালয় সংবাদদাতা মো. নাঈম হোসেনসহ ১০ শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন। আহতদের অধিকাংশের বাড়ি দুমকিতে।
বিশ্ববিদ্যালয়ে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যাপারে ফেসবুকে স্থানীয়দের নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের জের ধরে ওই হামলার ঘটনা ঘটেছে। বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি আনিসুজ্জামান আনিস ও সাধারণ সম্পাদক রায়হান আহমেদ রিমনের প্রত্যক্ষ মদদে হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।
এ ঘটনায় ক্যাম্পাসে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। জানা গেছে, পবিপ্রবিতে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের দাবিতে ১৮ মে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপি দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ২০ মে একটি প্রতিনিধি দল পটুয়াখালী পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে গিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন।
সেখানে জানানো হয়, দুমকির স্থানীয় কিছু রাজনীতিবিদের চাপের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ সম্ভব হচ্ছে না। পরে বৈঠকের বিষয়ে স্থানীয়দের উপর দোষ চাপিয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাস দিলে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে।
এ নিয়ে ফেসবুকে বিভিন্ন স্ট্যাটাস ও কমেন্ট চলতে
থাকে। এতে দুমকির ছাত্রদের নানাভাবে কটাক্ষ করা হয়। পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিদ্যুৎ সমস্যা সমাধান না হওয়ার জন্য তাদের দায়ী করা হয়। এতে ক্ষোভ আরও বাড়তে থাকে। একপর্যায়ে ছাত্রদের সঙ্গে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের দূরত্ব তৈরি হয়। এ নিয়ে ছাত্রলীগের সভাপতি ও সম্পাদকের উপস্থিতিতে সন্ত্রাসী হামলা চালায় ছাত্রলীগ ক্যাডাররা। এতে  বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. আনিসুজ্জামান আনিস এবং সাধারণ সম্পাদক রায়হান আহম্মেদ রিমনের ইন্ধনে কামরুজ্জামান সুমন, সাগর, অন্তর, বাদল, পলক, তানিম, রিয়াজ, হৃদয়সহ ২৫-৩০ জনের একটি দল  রামদা-হকিস্টিকসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ওই হামলা চালায় । এ সময় পেশাগত দায়িত্ব পালনরত  অবস্থায় ইত্তেফাক প্রতিনিধি নাঈম হোসেনের ঘাড়ে রড দিয়ে আঘাত করে সন্ত্রাসীরা। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়।
হামলায় ছাত্রদের মধ্যে আহতরা হলেন-  আলামিন, লিপ্তু, সোহেল, অভি, হাসান, নিলয়, শাকিল, মশিউর, মেহেদী। এদের মধ্যে গুরুতর আহত আলামিনকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তার কানের অর্ধেকাংশ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে বলে খবর পাওয়া গেছে।
Facebook Comments