পবিপ্রবি ছাত্রলীগের সম্মেলনকে ঘিরে পদপ্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ

জুলাই ১৯ ২০১৭, ১১:২৪

পবিপ্রবি প্রতিনিধি: দীর্ঘ প্রায় তিন বছর পর পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (পবিপ্রবি) শাখা ছাত্রলীগের দ্বিতীয় সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। শেষ পর্যন্ত সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী ২৫ জুলাই (মঙ্গলবার) এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। ইতোমধ্যেই সম্মেলনকে ঘিরে ঝিমিয়ে পড়া নেতাকর্মীরা নড়েচড়ে বসেছেন। সম্মেলনের তারিখ ঘোষণার পর থেকেই শুরু হয়ে গেছে পদপ্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ। শাখা ছাত্রলীগের ভাইটাল (সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক) পদে আসীন হতে দিন ও রাতকে একাকার করে বিভিন্ন জায়গায় সাবেক ও বর্তমান নেতাদের কাছে ধর্না দিচ্ছেন তারা।
পবিপ্রবি ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, আসন্ন কমিটিতে ভাইটাল পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন; বর্তমান কমিটির জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি শুভ সাহা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এস.এম শাহরিয়ার মিল্টন, রাকিবুল ইসলাম ও দপ্তর সম্পাদক শফিউল্লাহ অভি। এদের মধ্যে সভাপতির দৌড়ে এগিয়ে আছেন পবিপ্রবি ছাত্রলীগের ত্যাগী নেতা শুভ সাহা। কারণ হিসেবে জানা গেছে, শুভ সাহা ছাত্রলীগের দুর্দিনের কান্ডারি। তিনি পবিপ্রবি ছাত্রলীগের প্রথম কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ সাকিব বাদশার এলাকার ছেলে বর্তমান কমিটিতে জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করা এই শুভ সাহা। কেন্দ্রীয় কমিটির বর্তমান যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক চন্দ্র শেখর মন্ডলের সঙ্গে তার সুসম্পর্ক রয়েছে। অপরদিকে, সাধারণ সম্পাদকের দৌড়ে এগিয়ে আছেন বর্তমান কমিটির দুই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এস.এম শাহরিয়ার মিল্টন ও রাকিবুল ইসলাম। এদের মধ্যে শাহরিয়ার মিল্টনের দেশের বাড়ি বৃহত্তর ফরিদপুরে হওয়ায় এলাকার সন্তান হিসেবে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাবেক সভাপতি লিয়াকত সিকদারের সঙ্গে তার ভাল সম্পর্ক রয়েছে। এছাড়াও দলের দুর্দিনে মিছিল-সমাবেশে তিনি ছিলেন অগ্রভাগে।

অপরপ্রার্থী রাকিবুল ইসলাম রাকিব ক্যাম্পাসের একজন পরিচিত ব্যক্তি। স্থানীয় ছেলে হওয়ায় এলাকার একটা বড় অংশের সাপোর্ট পাবেন। আ’লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেনের সঙ্গে তার ভাল সম্পর্ক রয়েছে। এদিকে বর্তমান কমিটির দপ্তর সম্পাদক শফিউল্লাহ অভির নামও শোনা যাচ্ছে বেশ জোরেশোরেই। তিনিও পেতে পারেন আসন্ন কমিটির গুরুত্বপূর্ণ একটি পদ। এছাড়াও বর্তমান কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক কেএম মেহেদী হাসান, ফেরদৌস আহমেদ, কাকন মিয়া, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোসায়েদুল ইসলামসহ আরো বেশ কয়েকজন ছাত্রনেতা বিভিন্ন লেভেল থেকে লবিং তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।
তবে এত কিছুর মধ্যেও নিজ নিজ লিংক ব্যবহার করে কাঙ্খিত পদটি অর্জনে শেষ দিকে ব্যস্ত সময় পার করছেন পদপ্রত্যাশীরা। নিজ নিজ অবস্থানকে জোরালো বলে মনে করছেন তারা। এ ব্যাপারে বর্তমান কমিটির জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি শুভ সাহা বলেন, ছাত্রলীগের দুর্দিনে আমি মাঠে ছিলাম। নতুন কমিটিতে সভাপতি পদ পেলে আমি নিঃশর্তভাবে ছাত্রলীগের জন্য কাজ করবো এবং আমি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। আরেক প্রার্থী বর্তমান কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এস.এম শাহরিয়ার মিল্টন বলেন, সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আমি সফল হব। কেন্দ্রীয় কমিটি আমাকে যদি যোগ্য মনে করে, তাহলে আমি তাদের বিশ্বাস রাখার আপ্রাণ চেষ্টা করবো। অপরপ্রার্থী রাকিবুল ইসলাম বলেন, চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমাকে ক্যাম্পাসের নেতাকর্মীরা অকুন্ঠ সহযোগিতা করে যাচ্ছে। আশাকরি জয়ী হতে পারবো। প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ২২ সেপ্টেম্বর পবিপ্রবি শাখা ছাত্রলীগের প্রথম সম্মেলন শেষে ২৪ সেপ্টেম্বর মো. আনিসুজ্জামানকে সভাপতি ও রায়হান আহমেদ রিমনকে সাধারণ সম্পাদক করে এক বছরের জন্য বর্তমান কমিটির অনুমোদন দেন ছাত্রলীগের তৎকালীন কেন্দ্রীয় কমিটি।

Facebook Comments