প্রবাসীর স্ত্রীর সাথে অসামাজিক কাজের চেষ্টা!

আপডেট : May, 31, 2017, 11:17 pm

লালমোহন প্রতিনিধি: ভোলার লালমোহনে প্রবাসীর স্ত্রীর সাথে আসামাজিক কাজ করতে গিয়ে গনধোলাই’র শিকার হয়েছে মাখন চন্দ্র শীল নামের এক নরসুন্দর। পরে এলাকাবাসী তাকে উত্তম মাধ্য দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। মঙ্গলবার রাতে উপজেলার লর্ডহার্ডিঞ্জ ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের পেয়ারীমোহন গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় স্থানীয় সৌদি প্রবাসী সালাউদ্দিনের স্ত্রী খাদিজা বেগম বাদী হয়ে লালমোহন থানায় লিখিত অভিযোগ দেন। পরে দন্ড বিধির ৫০৯ ধারায় ৩ মাসের সশ্রম কারা দিয়ে এই নরসুন্দরকে জেল হাজতে পাঠিয়ে দেন লালমোহনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট (ইউএনও) মোঃ শামছুল আরিফ। খাদিজার অভিযোগ ; রাত ১১টার দিকে তিনি সন্তানদের ঘুমিয়ে থাকা অবস্থায় লম্পট নরসুন্দর মাখন শীল , ঘরে প্রবেশ করে তার গায়ে হাত বুলায়। এক পর্যায়ে খাদিজা ডাক চিৎকার দেয়ার চেষ্টা করলে লম্পট মাখন শীল খাদিজার গলার চেইন ছিঁেড় নেয়ার চেষ্টা করে। এসময় আশপাশের লোকজন এগিয়ে গিয়ে লম্পটকে ধরে ফেলে। ধৃত লম্পট মাখন শীল ; লর্ডহার্ডিঞ্জ বাজারের সেলুন ব্যবসায়ী এবং স্থানীয় বিরেন্দ্র চন্দ্র শীলের ছেলে। পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানাগেছে, লম্পট নরসুন্দর মাখন শীল পেশায় বাজারের সেলুন ব্যবসায়ী

হলেও তার বিরুদ্ধে চোর্য বৃত্তির অভিযোগ র্দীঘ দিনের। গত ৫ বছরের ব্যবধানে সে অন্তত ৫০ বাড়িতে চুরি করতে গিয়ে জনতার হাতে ধরা পরে। তার টার্গেট প্রবাসীদের ঘর। ঘরে ডুকে চোর্য বৃত্তির পাশাপাশি এই লম্পট সুযোগ বুঝে মহিলাদের সম্ভ্রমহানীর চেষ্টাও করে বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী। সর্বশেষ গত কিছু দিন আগে সে আসমা বেগম নামের এক শিক্ষিকার ঘরে চুরি করতে গিয়ে গনপিটুনির শিকার হয়। এর আগে লর্ডহার্ডিঞ্জ বাজারের সার কীটনাশক ব্যবসায়ী রহিমের ঘরে উলঙ্গ অবস্থায় প্রবেশ করে ধরায় খায় লম্পট নরসুন্দর মাখন শীল। গত ৩ মাস আগে আশ্রাফ আলী নামের এক ব্যক্তির ঘরে প্রবেশ করে ধরা খাওয়ার পর তাকে গনধোলাই দিয়ে গ্রাম পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হলে সেখান থেকে কৌশলে পালিয়ে গিয়ে এলাকার ৭/৮ জনের বিরুদ্ধে আদালাতে উল্টো মামলা করে এই লম্পট। এছাড়া গত ১ বছর আগে লালমোহন উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন তপন শীলের ঘরে চুরি করতে গিয়ে লম্পট মাখন শীল গনধোলাইর শিকার হয়। জানতে চাইলে দুই সন্তানের জনক মাখন শীল বলেন , আমার মাথায় সমস্যা আছে, তাই মানুষের ঘরে ডুকি।

Facebook Comments