ফের বরখাস্ত গাজীপুরের মেয়র মান্নান

আপডেট : July, 6, 2017, 9:26 pm

দীর্ঘদিন আইনি লড়াই চালিয়ে মেয়র পদে ফেরার এক মাসের মধ্যেই ফের বরখাস্ত হলেন গাজীপুরের মেয়র এম এ মান্নান।

বৃহস্পতিবার স্থানীয় সরকার বিভাগের এক প্রজ্ঞাপনে এই বিএনপি নেতাকে মেয়র পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

দুর্নীতি দমন কমিশনের এক মামলায় তার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র আদালতে গৃহীত হওয়ায় আইন অনুযায়ী এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, মেয়র অধ্যাপক এমএ মান্নান দায়িত্ব পালনকালে সিটি করপোরেশনের ত্রাণ ও দরিদ্র তহবিলের আয় সমূহ কোনো ব্যাংক হিসেবে না রেখে নিয়ম বহির্ভূতভাবে ক্যাশ ইন হ্যান্ড হিসেবে হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়ার কাছে রাখেন। তারা পরস্পর যোগসাজসে ক্ষমতার অপব্যবহার, প্রতারণা, বিধিভঙ্গ ও টাকা গ্রহীতার স্বাক্ষরবিহীন ৯৯৯টি ভূয়া ভাউচার সৃজন করে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ৪৯ লাখ ১ হাজার ৮৪৮ টাকা আত্মসাৎ করেন। এ মর্মে দুদক গত বছরের ১২ জুন জয়দেবপুর থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

ওই মামলায় গত ১২ জানুয়ারি গাজীপুরের বিশেষ জজ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদুক। পরে ১৮ জানুয়ারি ওই অভিযোগপত্রটি ওই আদালতে গৃহিত হয়। এর প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় মেয়র অধ্যাপক এমএ মান্নান ও হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়।   এ নিয়ে অধ্যাপক এমএ মান্নানে তৃতীয়বার বরখাস্ত করা হলো।

এর আগে ২৮ মাস বরখাস্ত থাকার পর  আইনী লড়াইয়ে বিজয়ী হয়ে গত ১৮ জুন মেয়রের চেয়ারে বসেন অধ্যাপক এমএ মান্নান।

দীর্ঘদিন আইনি লড়াই

চালিয়ে মেয়র পদে ফেরার এক মাসের মধ্যেই ফের বরখাস্ত হলেন গাজীপুরের মেয়র এম এ মান্নান। বৃহস্পতিবার স্থানীয় সরকার বিভাগের এক প্রজ্ঞাপনে এই বিএনপি নেতাকে মেয়র পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। দুর্নীতি দমন কমিশনের এক মামলায় তার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র আদালতে গৃহীত হওয়ায় আইন অনুযায়ী এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, মেয়র অধ্যাপক এমএ মান্নান দায়িত্ব পালনকালে সিটি করপোরেশনের ত্রাণ ও দরিদ্র তহবিলের আয় সমূহ কোনো ব্যাংক হিসেবে না রেখে নিয়ম বহির্ভূতভাবে ক্যাশ ইন হ্যান্ড হিসেবে হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়ার কাছে রাখেন। তারা পরস্পর যোগসাজসে ক্ষমতার অপব্যবহার, প্রতারণা, বিধিভঙ্গ ও টাকা গ্রহীতার স্বাক্ষরবিহীন ৯৯৯টি ভূয়া ভাউচার সৃজন করে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ৪৯ লাখ ১ হাজার ৮৪৮ টাকা আত্মসাৎ করেন। এ মর্মে দুদক গত বছরের ১২ জুন জয়দেবপুর থানায় মামলাটি দায়ের করেন।   ওই মামলায় গত ১২ জানুয়ারি গাজীপুরের বিশেষ জজ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদুক। পরে ১৮ জানুয়ারি ওই অভিযোগপত্রটি ওই আদালতে গৃহিত হয়। এর প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় মেয়র অধ্যাপক এমএ মান্নান ও হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়।   এ নিয়ে অধ্যাপক এমএ মান্নানে তৃতীয়বার বরখাস্ত করা হলো। এর আগে ২৮ মাস বরখাস্ত থাকার পর  আইনী লড়াইয়ে বিজয়ী হয়ে গত ১৮ জুন মেয়রের চেয়ারে বসেন অধ্যাপক এমএ মান্নান।

Facebook Comments