বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রচনা প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছিলেন তারিক

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বরগুনা সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) গাজী তারিক সালমন। ডাক নাম অয়ন। বরগুনায় বদলি হওয়ার আগে তিনি একই পদে দায়িত্ব পালন করেছেন বরিশালের আগৈলঝাড়ায়। সালমনের গ্রামের বাড়ি সাতক্ষীরা জেলার দেবহাটা উপজেলার কোমরপুর গ্রামে। তার পিতা আব্দুর রহমান প্রাথমিক শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অবসরপ্রাপ্ত ডেপুটি ডিরেক্টর। তিনি একজন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাও।

যশোর জেলা স্কুল ও যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজে পড়াশোনা শেষে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০০১-২০০২ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি হন সালমন। ২৮তম বিসিএসের মাধ্যমে প্রশাসন ক্যাডারে  যোগদান করেন তিনি। মজার ব্যাপার হলো, যার বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃতির অভিযোগে মামলা হলো, সেই সালমন নিজেই স্কুলে পড়াকালীন বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রচনা প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে প্রথম স্থান অধিকার করেছিলেন।
এদিকে, তারেক সালমন সম্পর্কে তার বড় মামী মিলি আফরোজা ফেসবুকে লিখেছেন, ‘আমি তার বড় মামী। আমাদের কাছে সে  ‘অয়ন’। আজ আমার এই লেখার পেছনে একটি বিশেষ কারণ আছে। আমার মনে হয়েছে তা সবার জানা দরকার। সে যখন অনেক ছোট তখন থেকেই তার বিভিন্ন বইপড়া আর লেখার অভ্যাস। ঈদের সময় শার্ট-প্যান্টের বদলে সে বই কিনতে পছন্দ করতো। নিজে হাতে লিখে কবিতার বই বের করে। স্কুলেও হাতে লিখে দেয়াল
পত্রিকা বের করত।
সুন্দর হাতের লেখা প্রতিযোগিতায় সে কয়েকবার জাতীয় পর্যায়ে প্রথম স্থান অধিকার করেছিল। সে ছোটবেলা থেকেই হৃদয়ে বঙ্গবন্ধুকে ধারণ করে আসছে। এমন একজন ছেলে সম্পর্কে যদি বলা হয়- বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃতি করেছে তাহলে আমরা তার পরিবারের সদস্যরা হাসবো না কাঁদবো বুঝতে পারছি না। তার সেই ছোটবেলার লেখা আমি অনেক যত্নে আমার কাছে রেখে দিয়েছিলাম আমার ছেলে দীপের কিছু স্মৃতির সাথে। একথা অয়নও হয়তো জানে না।
তার বড় মামা মনজুরুল হক গানের ডায়েরিতে তাকে দিয়ে গান লিখে নিয়েছিল সুন্দর হাতের লেখা ধরে রাখার জন্য। দুই রকমভাবে সে লিখতো। কখনও ভাবিনি এগুলো এভাবে কাজে লেগে যাবে। সেগুলো সবাইকে দেখানোর জন্যই আজ এই পোস্ট দিলাম। আজ সারাদেশের জনগণ যেভাবে তার পাশে দাঁড়িয়েছে তা দেখে আমরা আপ্লুত, কৃতজ্ঞ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এই বিষয়টি খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন। আমরা পরিবারের পক্ষ থেকে তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।’
গাজী তারিক সালমন সাংবাদিকদের বলেন, একজন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হয়ে জাতির জনকের ছবি বিকৃতির মামলা তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ছাড়া আর কিছুই নয়। সরকারি চাকরির বিধিনিষেধের কারণে এর বাইরে তিনি এর বেশি কিছু বলতে চাননি।
Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>