বন্ধুর সঙ্গে প্রেম হয় নাকি!

আপডেট : August, 6, 2017, 10:51 pm

খুব কাছের সেরা বন্ধুটির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে না জড়ানোর পরামর্শ দেন অনেকেই। কারণ, সম্পর্কের মধ্যে নানান উত্থান-পতন থাকে। সম্পর্ক যদি ঠিকঠাক না চলে, তখন প্রেম তো হয়ই না, বন্ধুত্বও ছুটে যায়।

গবেষকেরা বলছেন, সফল সম্পর্কের ভিত্তিই হলো বন্ধুত্ব। শুরুটা বন্ধুত্ব দিয়ে হলে সেই সম্পর্ক প্রেমে গড়ালে তা টেকসই হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক বলছেন, প্রেমের ক্ষেত্রে দীর্ঘদিনের পরিচিতজনকে (বন্ধু) অন্যের চেয়ে বেশি আকর্ষণীয় মনে হতে পারে। এই পরিচিতজনকে প্রেমের সঙ্গী হিসেবে বেছে নিলে সম্পর্ক ভালো হয়।

শিক্ষার্থীদের মধ্যে পরিচালিত গবেষণায় একটি নির্দিষ্ট মেয়াদে পরস্পরকে রেটিং দিতে বলেন গবেষকেরা। কয়েক মাসের মধ্যে পরস্পরের মধ্যে রেটিং বাড়তে দেখা যায়।

গবেষকেরা ১৬৭ জুটিকে ডেটিংয়ের আগে কত দিনের সম্পর্ক, সে প্রশ্ন করেন। তাতে দেখা যায়, গড়ে চার মাস চেনাজানার পর ডেটিং শুরু করেছেন তাঁরা। ৪০ শতাংশ জুটি উত্তর দিয়েছেন, ডেটিং শুরুর আগে

তাঁদের মধ্যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক ছিল।

বন্ধুত্ব থেকে প্রেমের সুবিধা
জানাশোনা: বন্ধুত্বের পর্যায়ে দুজন দুজনকে ভালোভাবে জানতে পারেন। পরস্পরের ভালো ও খারাপ দিকগুলো জানা হয়ে যায়। গভীর বন্ধুত্বের মধ্যে লুকোচুরি কম থাকে। সবচেয়ে ভালো বন্ধুর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কের মানে তাঁর সবকিছু জেনেই তাঁর প্রতি আকৃষ্ট হওয়া।

পছন্দ কাছাকাছি: বন্ধুত্বের পর্যায়ে দুজনের পছন্দের বিষয়গুলো জানা হয়ে যায়। দুজনের পছন্দে ভিন্নতা থাকলেও বন্ধুত্বের সুবাদে ব্যবধান কমে আসে বা ঘুচে যায়। তাই প্রেমের সময় এ নিয়ে আর মতভেদ থাকে না। দুজনের মধ্যে সম্পর্ক সহজ হয়ে যায়।

পরিবার বাধা নয়: বন্ধুত্বের ফলে দুজনই দুজনের পরিবারে আগে থেকেই পরিচিতি থাকে। বন্ধুত্ব যদি গভীর হয়, তাহলে প্রেমের সম্পর্কের ক্ষেত্রে পারিবারিক চাপ কম থাকে।

প্রত্যাশা বাস্তবসম্মত: বন্ধুত্বের সম্পর্কে প্রত্যাশা বাস্তবসম্মত থাকে। তাই বন্ধুত্বের সম্পর্ক প্রেমে গড়ালে সে ক্ষেত্রে প্রত্যাশার জায়গায় তেমন ঝামেলায় হয় না। সম্পর্ক স্বাচ্ছন্দ্য থাকে।

তথ্যসূত্র: সিএনএন

Facebook Comments