বরিশালে কোটি টাকা আত্মসাৎ’র অভিযোগে সিভিল সার্জনসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশীট!

এপ্রিল ০৩ ২০১৭, ১৫:২৪

বরিশালঃবরিশাল সিভিল সার্জন অফিসে ৫৭ পদের ওষুধ এবং ইলেকট্রো মেডিকেল ওয়ার্কশপের খুচরা যন্ত্রপাতি ও মালামাল ক্রয়ের নামে প্রায় কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ২০ বছর পর চার্জশীট দিয়েছে দুদক। রোববার বিকেলে অতিরিক্ত চীফ মেট্রোপলিটন আদালতে উপস্থাপনের জন্য জিআর’র নিকট চার্জশীট জমা দেন দুদক’র ঢাকা কার্যালয়ের সহকারি পরিচালক এনায়েত হোসেন।
এ মামলায় অভিযুক্তরা হচ্ছেনঃ বরিশালের সাবেক সিভিল সার্জন ও বর্তমানে মেহেরপুর সিটি নার্সিং হোমে কর্মরত ডাঃ খায়রুল আলম, সাবেক সিভিল সার্জন ও বর্তমানে এক্সেনসিয়া টাওয়ার সেগুন বাগিচার বাসিন্দা ডাঃ আফতাব উদ্দিন আহম্মেদ, মাদারীপুরের মেসার্স মাদারীপুর মেডিসিন সাপ্লাইয়ার্স’র মালিক ঠিকাদার সাইদুর রহমান খান ও বরিশাল ডিভিশনাল কন্ট্রোলার অব একাউন্টসের সাবেক জেলা হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা বর্তমানে অবসরে হাবিবুর রহমান।
আদালত সূত্র জানায়, ১৯৯৬ সালের ১১ ডিসেম্বর থেকে ১৯৯৮ সালের ৭ জানুয়ারী পর্যন্ত দায়িত্বে থেকে সিভিল সার্জন ডাঃ খায়রুল আলম ক্ষমতার অপব্যবহার করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্ধারিত মূল্য উপেক্ষা করে উচ্চ মূল্যে ওষুধ ক্রয়ের বিপরীতে ৫ কোটি ৮২ লাখ ৫৪ হাজার ৪৫৪ টাকার ৯টি বিল জমা দেন। ওই বিল থেকে ৯১ লাখ ৬৪ হাজার ৯৬ টাকা আত্মসাত করেন। এ ঘটনায় ২০১৬ সালের ২১ মার্চ দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারি পরিচালক আমিরুল ইসলাম

সিভিল সার্জন ডাঃ খায়রুল আলমসহ ৬ জনকে অভিযুক্ত করে মামলা দায়ের করেন।
অপরদিকে ১৯৯৭ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে একই বছর ২ অক্টোবর পর্যন্ত একই পদে দায়িত্বে থেকে সিভিল সার্জন ডাঃ খায়রুল আলম ক্ষমতার অপব্যবহার করে দরপত্র কমিটির সদস্য ডাঃ সাইদুর রহমান, প্রশাসনিক কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন ও সদস্য সচিব ডাঃ হাবিবুর রহমানের সহায়তায় এমএসআর স্ট্যান্ডার্ডের চেয়ে অধিক দরে ২৫টি বিপি মেশিন এবং অপারেশনের লাইটসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র ক্রয় করেন। ওই সকল জিনিস ক্রয়ের উপর ৩% ভ্যাট বাবদ ৪ লাখ ৩৯ হাজার ৪৪৫ টাকা ও অপর একটি বিলের ২ লাখ ১০ হাজার ১০৫ টাকা আত্মসাত করেন। এ ঘটনায় ২০১৬ সালের ২১ মার্চ দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারি পরিচালক আমিরুল ইসলাম সিভিল সার্জন ডাঃ খায়রুল আলমসহ ৯ জনকে অভিযুক্ত করে আরো একটি মামলা দায়ের করেন। দায়ের করা মামলায় গত ২০ মার্চ ৬ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট দাখিল করেন। এ মামলায় অভিযুক্তরা হচ্ছেন ঃ বরিশালের সাবেক সিভিল সার্জন ডাঃ খায়রুল আলম, সাবেক ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাঃ সাইদুর রহমান, সাবেক মেডিকেল অফিসার ডাঃ হাবিবুর রহমান, সাবেক প্রশাসনিক কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন, ডিভিশনাল কন্ট্রোলার অব একাউন্টসের সাবেক জেলা হিসাবরক্ষন কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান ও ঠিকাদার আমিনুর রহমান চৌধুরী।###

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>