বরিশালে দপ্তরী নিয়োগে অনিয়ম,প্রধান শিক্ষকসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা

আপডেট : June, 16, 2017, 12:00 am

অবৈধ প্রভাবিত হয়ে মুুলাদীর ১৫ নং হোসনাবাদ (জালালপুর) সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরীর নিয়োগ পরীক্ষায় সর্বোচ্চ নম্বর পেয়েও মেধা তালিকা থেকে বাদ দেয়ার অভিযোগে প্রধান শিক্ষকসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। গত বুধবার যুগ্ম জেলা জজ ১ম আদালতে মুলাদীর জাহাঙ্গীর আলম মামলাটি দায়ের করেন। আদালতের বিচারক মোঃ আব্দুল হামিদ মামলাটির আদেশ দানে পরবর্তী দিন ধার্য্যরে নির্দেশ দেন। মামলায় অভিযুক্ত অন্যান্যরা হলেন ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি, উপজেলা শিক্ষা অফিসার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার, জেলা প্রশাসক, উপজেলা হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা, বিভাগীয় হিসাব নিয়ন্ত্রক ও অবৈধ প্রভাবকারী একই এলাকার আঃ রশীদ বেপারীর ছেলে সাইফুল ইসলাম। মামলা পরিচালনাকারী আইনজীবী আজাদ রহমান জানান, মুুলাদী ১৫ নং হোসনাবাদ (জালালপুর) সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী পদে জনবল নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রচার করা হয়। এতে

জালালপুরের মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এসাহাক সরদারের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবরে আবেদন করেন। আবেদনপত্রে স্থানীয় এমপি এ্যাড. শেখ টিপু সুলতান ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার তাকে নিয়োগ প্রদানের সুপারিশ করেন। এর প্রেক্ষিতে গত ৭ মার্চ আবেদনের প্রেক্ষিতে উপজেলা শিক্ষা অফিসার জাহাঙ্গীর আলমকে ২০ মার্চ মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহনের জন্য প্রবেশপত্র প্রেরণ করেন। একই দিনে জাহাঙ্গীর আলম পরীক্ষায় সর্বোচ্চ নম্বর পেয়ে ১ম হন। যা প্রধান শিক্ষকসহ অন্যান্যরা ফলাফল জানিয়ে দেন। কিন্তু পরবর্তীতে ২য় স্থান অধিকারী সাইফুল ইসলামের কাছ থেকে অবৈধ প্রভাবিত হয়ে প্রধান শিক্ষক, সভাপতি, উপজেলা শিক্ষা অফিসার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলামকে ১ম ও তাকে ২য় দেখিয়ে ৩ জনের মেধাক্রম অনুসারে তালিকা অনুমোদন করান। এ ঘটনায় সর্বোচ্চ নম্বর পেয়েও দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরীর পদে নিয়োগ না পাওয়ায় গতকাল মামলাটি দায়ের করলে বিচারক ওই নির্দেশ দেন।

Facebook Comments