বরিশালে মোটরসাইকেল চোরাই সিন্ডিকেট চক্র বেপরোয়া

শামীম আহমেদ, বরিশালঃ ক্রমেই বেপরোয়া হয়ে উঠেছে মোটরসাইকেল চোরাই সিন্ডিকেট চক্রের সদস্যরা। বাড়ি, অফিস ও দোকানের কলাবসিবল গেট ভেঙ্গে একের পর এক মোটরসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটলেও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কেউ এখনও ওই চক্রের কাউকে সনাক্ত করতে পারেননি। ফলে জেলার গৌরনদীতে একের পর এক মোটরসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এখানে সর্বশেষ সোমবার দিবাগত গভীর রাতে গৌরনদী মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্র সংলগ্ন আলাউদ্দিন ভূঁইয়ার বাসভবনের ভাড়াটিয়া গ্রামীণ ফোনের অফিসের কলাবসিবল গেট ভেঙ্গে কৌশলে একটি প্লাটিনা মোটরসাইকেল চুরি করে নেয় সংঘবদ্ধ চোরেরা। এরপূর্বে ওই অফিস থেকে এ্যাপাসি ও পালচার নামের দুইটি মোটরসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটে। অতিসম্প্রতি কসবা এলাকার আজাহার বিকসের সামনে থেকে ছাত্রলীগ নেতা ইমরাত খানের সহদরের একটি মোটরসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় তাৎক্ষনিক ছাত্রলীগ নেতা তার সহযোগীদের নিয়ে তল্লাশী চালিয়ে বাউরগাতি নামক এলাকা থেকে চুরিকরা মোটরসাইকেলসহ এক চোরকে আটক করে পুলিশের কাছে সোর্পদ করে।

/> এরপূর্বে গৌরনদী লঞ্চঘাট সংলগ্ন একটি দোকানের সাটার ভেঙ্গে পৌরসভার কর পরিদর্শক মোঃ মনিরুজ্জামানের ডিসকভার নামের একটি মোটরসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনার কয়েকদিন পরেই গৌরনদী পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি মনির হোসেন মিয়ার বাসভবন থেকে মোটরসাইকেল চুরির সময় স্থানীয়রা এক চোরকে হাতেনাতে আটক করে পুলিশের কাছে সোর্পদ করলেও পুলিশ ঘটনার মূলহোতাদের আটক করতে পারেননি। ফলে একের পর এক মোটরসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটেই চলেছে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক ভূক্তভোগী জানান, সর্বশেষ সোমবার গভীর রাতে মোটরসাইকেল চুরি করে সংঘবদ্ধ চোরেরা দ্রুতগতিতে ভূরঘাটার দিকে পালিয়ে যাবার সময় রাতের টহল পুলিশের সামনে পরলেও পুলিশ তাদের গতিরোধ না করে উল্টো গৌরনদী বাসষ্ট্যান্ডে এসে খোঁজ করতে থাকেন কারো মোটরসাইকেল চুরি হয়েছে কিনা। বিষয়টি নিয়ে ভূক্তভোগীদের মধ্যে চাঁপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। এ ব্যাপারে গৌরনদী মডেল থানার ওসি মোঃ ফিরোজ কবির বলেন, মোটরসাইকেল চোরচক্রের সদস্যদের সনাক্ত করতে পুলিশের একাধিক টিম মাঠে কাজ করছেন।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>