বরিশালে শিকলে বেঁধে গৃহবধূকে মধ্যযুগীয় নির্যাতন

আপডেট : April, 27, 2017, 8:27 pm

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার মাহিলাড়া ইউনিয়নের শরিফাবাদ গ্রামে যৌতুক না পেয়ে লোহার শিকল দিয়ে বেঁধে গৃহবধু তাসলিমা বেগমকে (৩০)কে মধ্যযুগীয় কায়দায় অমানুষিক ও শারীরিক নির্যাতন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

পাষান্ড স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজনে নির্যাতনের শিকার হয়ে গৃহবধু তাসলিমা বরিশাল শেরে-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

এ ব্যাপারে নির্যাতিতার মা উজিরপুর উপজেলার জুগিহাটি গ্রামের জাহানারা বেগম বাদি হয়ে স্বামী বাদল মৃধা, দেবর লালমিয়া মৃধাকে আসামি করে গৌরনদী মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

নির্যাতিতার মা জাহানারা বেগম জানায়, গত ১৬ বছর পূর্র্বে গৌরনদী উপজেলার শরিফাবাদ গ্রামের মৃত আব্দুর ওহাব মৃধার মেঝ ছেলে বাদল মৃধার সাথে উজিরপুর উপজেলার জুগিহাটি গ্রামের আঃ আজিজ হাওলাদারের কন্যা তাসলিমা বেগমের সামাজিক ভাবে বিয়ে হয়।

বিয়ের সময় মেয়ে জামাতা বাদল মৃধাকে যৌতুক হিসেবে ৩ ভরি স্বর্ণালংকার দেয়া হয়। এরপর বাদলকে গত ২ বছর পূবে নসিমন খরিদের জন্য নগদ ২ লাখ টাকা যৌতুক দেয়া হয়।

বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন গৃহবধু তাসলিমা বেগম অভিযোগ করেন, গত ১ মাস ধরে তার স্বামী ও দেবর আরো এক লাখ টাকা যৌতুক এনে দেয়ার জন্য তাকে বিভিন্ন সময় চাপ সৃষ্টি করে আসছিল। দাবিকৃত যৌতুকের

টাকা এনে দিতে অস্বীকার করায় প্রায়ই ম্বামী ও দেবর তাসলিমাকে শারীরিক ও মানুষিক নির্যাতন করতো।

তিনি জানান, তাসলিমা বাড়িতে যাওয়ার পর থেকে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পায় ঢাকায় অবস্থানরত তাসলিমার ছেলে। সে তার মাকে না পেয়ে ওইদিন ভোররাতে পিতা বাদলের মোবাইলে ১২টি কল দেয়ার পর তিনি রিসিভ করেন। এ সময় তাসলিমা ডাকচিৎকার করে বাঁচানোর আকুতি জানালে তাসলিমার ছেলে তা শুনতে পায়। সে বিষয়টি তার নানাকে অবহিত করেন।

তারা বুধবার খুব ভোরে গিয়ে তাসলিমাকে শিকলে বাধা গুরুতর আহত অবস্থায় দেখতে পায়। এ সময় বাদল তার শ্বশুর আজিজ হাওলাাদরকেও মারতে উদ্যত্ত হয়। আজিজ মেয়েকে উদ্ধারে তালার চাবি চাইলে তা দেয়া হয়নি। শেষ পর্যন্ত কুড়াল ও দা দিয়ে একটি তালা ভেঙ্গে তাসলিমাকে শিকল বাধা অবস্থায় বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সেখানে আনার পর অপর তালাটি নগরী থেকে চাবি কাটানোর লোক নিয়ে তা খোলা হয়।

বার্ন ইউনিটের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তাসলিমার শরীরের আগুনের ছ্যাকার চেয়েও নির্যাতন করা হয়েছে বেশী।

গৌরনদী মডেল থানার ওসি মো. ফিরোজ কবির জানান, এ ঘটনায় নির্যাতিতার মা বাদি হয়ে আজ বৃহস্পতিবার বিকালে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। আসামিদের গ্রেপ্তার জোর প্রচেষ্টা চলছে।

Facebook Comments