বরিশাল নগর উন্নয়নের ২৪৭ কোটি টাকার প্রকল্প নিয়ে অনিশ্চয়তা!

অক্টোবর ২১ ২০১৭, ২৩:৫৮

দিনভর বর্ষণে বরিশাল নগরীর বিভিন্ন সড়কে জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। বৃষ্টি হলেই এমন জলাবদ্ধতায় চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে নগরবাসীকে। নগরীর ২৩টি খাল খননের স্থায়ী কোনো উদ্যোগ না নেয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে। এসব খাল সংস্কারে বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) ২৪৭ কোটি টাকার একটি প্রকল্প মন্ত্রণালয়ে পাঠালেও তা বাস্তবায়নে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, নগরবাসীর মতামত ছাড়াই পাঠানো ওই প্রকল্প প্রথমবারই ফেরত পাঠিয়েছে মন্ত্রণালয়। তবে বিসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ওয়াহেদুজ্জামান বলেন, মন্ত্রণালয়ের চাহিদা অনুযায়ী ২৪৫ কোটি টাকার প্রকল্প দেয়া হয়েছে। এটি একনেকে অনুমোদন হলে সব শ্রেণী-পেশার প্রতিনিধিদের মতামত নিয়ে উন্নয়ন কাজ করা হবে।
প্রকল্পের দায়িত্বে থাকা বিসিসির নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ লুৎফর রহমান বলেন, নগরীর সব খাল খনন, সংরক্ষণ ও সৌন্দর্যবর্ধনের জন্য ২৪৭ কোটি ৩ লাখ টাকার একটি প্রকল্প জুনে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। আগস্টে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সভায় প্রকল্পটি প্রথমবারের মতো উপস্থাপিত হয়। ওই সভায় কিছু কিছু বিষয় সংশোধন করে প্রকল্পটি পুনঃপ্রেরণের জন্য বিসিসিকে নির্দেশ দেয়া হয়। মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী সংশোধন করে খুব শিগগিরিই প্রকল্প ফের পাঠানো হবে। নির্বাহী প্রকৌশলী লুৎফর রহমান বলেন, প্রকল্প

অনুযায়ী নগরীর সব খাল খনন ও পাড় বাধাই করে বৃক্ষরোপণ করা হবে। সড়কের পাশে থাকা খালগুলো ব্লক ফেলে বসার বেঞ্চ করে দেয়া হবে।
বরিশাল নদী-খাল বাঁচাও রক্ষা কমিটির সদস্য সচিব কাজী এনায়েত হোসেন শিপলু বলেন, খালগুলো সংস্কার না করায় বৃষ্টি হলেই নগরীতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। শুক্রবারও বৃষ্টির কারণে অধিকাংশ সড়ক পানিতে ডুবেছে। এর কারণ ড্রেনের পানি খালে নামতে পারছে না। তিনি বলেন, নগরীর খালগুলো রক্ষার জন্য দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করছেন। গেল বছর জেলা প্রশাসকের সহায়তায় হাজার হাজার স্বেচ্ছাসেবী নিয়ে জেলখাল পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছেন। কিন্তু ২৪৭ কোটি টাকার মতো প্রকল্প গঠনের আগে নগরীর সামাজিক সংগঠন ও সুশীল সমাজের মতামত নেয়া হলে প্রকল্পটি অবশ্যই বাস্তবায়নযোগ্য হতো। শিক্ষক-কর্মচারী ঐক্য ফ্রন্টের আহ্বায়ক অধ্যাপক মহসিন উল ইসলাম হাবুল বলেন, নগরীর খালগুলো সংস্কারে যে প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে তা অপরিকল্পিত। বরিশাল নগর উন্নয়ন অধিদফতরের সিনিয়র প্লানার মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, নগরীর যে কোনো ধরনের উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণের আগে তাদের সঙ্গে আলোচনা করার জন্য বিসিসির প্রতি বারবার আহ্বান জানানো হয়। কিন্ত বিসিসি কখনই এতে সাড়া দেয়নি।

Facebook Comments