বৃষ্টিতে প্রশান্ত বরিশালের রোজাদারের অন্তর

পবিত্র রোজা শুরুর দু’দিন আগেও তীব্র তাপদাহ চলছিল। রেকর্ড পরিমাণ গরম পড়েছিল বরিশালে সারাদেশে। সেই সাথে টানা দুই সপ্তাহ দেখা মেলেনি বৃষ্টির। এতে দুশ্চিন্তায় ছিলেন অনেকেই। এত গরমে ঠাণ্ডা-পানীয়
ইত্যাদি খেয়েই যেখানে বেঁচে থাকা দায়- সেখানে দীর্ঘ ১৫ ঘণ্টা না খেয়ে, না  পান করে (রোজা) থাকবে কি করে!

কিন্তু আল্লাহর কি কুদরত, রোজা আসতে না আসতেই রহমতের বৃষ্টি শুরু হয়ে গেল। রোজার দ্বিতীয় দিন রোববার (২৮ মে) বরিশালে এক পশলা বৃষ্টি প্রশান্তি নিয়ে আসল রোজাদর মুমিন হৃদয়ে। রহমতের বারিধারায় সিক্ত হলো প্রভুপ্রেমী হাজারও রোজাদার।

‘রমজান শুরুর আগের গরম আর রোজা শুরু হলেই বৃষ্টি- এ আল্লাহর বিশেষ রহমত।’ যেমনটা বলছিলেন ফল ব্যবসায়ী আবদুল আলীম। তিনি বলেন, ‘দু’দিন আগেও খুব দুশ্চিন্তায় ছিলাম- এত গরমে ফুটপাতে ব্যবসা করে রোজা রাখা কী  কষ্টটাই না হবে! কিন্তু আল্লাহর রহমতে বৃষ্টি হওয়ায় সেই টেনশন দূর হয়ে গেছে।’

তিনি বলতে থাকেন, ‘বৃষ্টি হলে ব্যবসার কিছুটা সমস্যা হলেও রোজাগুলো আরামে পালন করতে পারব। আর আমার কাছে এই মাসে ব্যবসার চেয়ে রোজাটাই বড়।’

রহমতের রমজানে বৃষ্টি এলো প্রশান্তির পরশ বুলিয়ে। বৃষ্টি মহান প্রভুর রহমত। পবিত্র কোরআনে আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘তুমি পৃথিবীকে নিষ্প্রাণ দেখতে পাও। এরপর আমি যখন এর ওপর পানি বর্ষণ করি তখন তা সক্রিয় হয়ে ওঠে ও ফেঁপে-ফুলে ওঠে এবং  প্রত্যেক প্রকার উদ্ভিদের সবুজ-শ্যামল শোভামণ্ডিত জোড়া উৎপন্ন করে।’ -সূরা হজ: ৫

অন্যত্র বলা

হয়েছে, ‘আর আল্লাহ আকাশ থেকে পানি অবতীর্ণ করেছেন এবং পৃথিবীকে মৃত্যুর পর এর মাধ্যমে জীবিত করে তুলেছেন। নিশ্চয় এতে সেসব লোকের জন্য রয়েছে এক বড় নিদর্শন যারা কথা শোনে।’ –সূরা নাহল: ৬৫

সূরা বাকারায় আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘তিনিই পৃথিবীকে তোমাদের জন্য বিছানা ও আকাশকে ছাদরূপে বানিয়েছেন এবং মেঘ থেকে পানি অবতীর্ণ করেছেন। এরপর তা দিয়ে তিনি তোমাদের জন্য রিজিকরূপে নানা ধরনের ফলফলাদি উৎপন্ন করেছেন। অতএব, তোমরা জেনে-শুনে কাউকে আল্লাহর সমকক্ষ দাঁড় করাবে না।’ -সূরা বাকারা: ২২

রমজানের রমহত (বৃষ্টি) রোজা শেষ অবধি পশলা হয়ে নেমে আসুক। মুমিন হৃদয়ে প্রশান্তির পরশ প্রতিদিন বুলিয়ে দিক। সকল শ্রেণির মুসলিম মানুষের জন্য রোজা পালন সহজ হয়ে উঠুক- এই প্রত্যাশা মহান প্রভুর দরবারে।

উল্লেখ্য,গত কয়েক দিনের তাপদাহের পর বৃষ্টি হয়েছে বরিশালে । সোমবার দুপুরে এক পশলা বৃষ্টিতে অবশেষে নগর জীবনে স্বস্তি ফিরেছে। বৃষ্টির কারণে খানিকটা তাপমাত্রাও কমেছে।

বেলা ২ টা পাঁচ মিনিটের দিকে শুরু হয় প্রত্যাশিত বৃষ্টি। তবে স্থায়ী হয়নি বেশিক্ষণ। প্রায় ১০ মিনিট ধরে হালকা বৃষ্টি হয়। এরপরে কিছুক্ষনের বিরতি দিয়ে আবার  শুরু হয় প্রশান্তির বৃষ্টি। আর  এতে আবহাওয়া খানিকটা শীতল হতে শুরু করায় স্বস্তি পান নগরবাসী।

এর আগে, আবহাওয়া অফিসের উচ্চ পর্যবেক্ষক প্রনব কুমার রায় জানান, তাপপ্রবাহের কারণে গত দুই সপ্তাহ ধরে বৃষ্টি হচ্ছে না। পাশাপাশি এ সময়ে বরিশালে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত রেকর্ড করা হয়েছে।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>