মোহনগঞ্জে প্রবাসীর ইজারা নেওয়া সরকারি দোকান বিক্রি করে দিলেন কেয়ারটেকার!

জুন ১০ ২০১৭, ২২:২১

ভ বাবুগঞ্জের মোহনগঞ্জ বাজারে এক প্রবাসী নৌ-কর্মকর্তার সরকারি বন্দোবস্ত নেওয়া দোকানঘর গোপনে বিক্রি করে দিয়েছেন তারই কেয়ারটেকার আনোয়ার সিকদার। শুধু তাই নয়, বিদেশ থেকে পাঠানো টাকায় নিজের ভবন নির্মাণ করে তা দখল করে নিয়েছেন তিনি। প্রবাসীর দোকান ছাড়াও তার দীর্ঘ অনুপস্থিতির সুযোগে পৈত্রিক বসতবাড়ির অধিকাংশ সম্পত্তি দখল করে নিজের নামে রেকর্ড করিয়ে নিয়েছেন। এ ঘটনা ফাঁস হয়ে গেলে দেশে ফিরে আসার পর এখন তাকে সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে হত্যার হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী ওই প্রবাসী নৌ-বাহিনী (অবঃ) ইঞ্জিনরুম আর্টিফিসিয়ার (পেটি অফিসার) মোঃ মোস্তফা কামাল।
প্রত্যক্ষদর্শী, ভুক্তভোগী ও স্থানীয় বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মোহনগঞ্জ বাজারের প্রায় সাড়ে ২৫ শতাংশ সরকারি খাসজমি প্রায় ৩০ বছর আগে বন্দোবস্ত পান স্থানীয় সরকারি কর্মচারী আনোয়ার মিয়া। তিনি ওই জমিতে পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন। আনোয়ার মিয়া মৃত্যুর পরে পরিবারের দায়িত্ব নেন তার বড় ছেলে নৌ-বাহিনীর পেটি অফিসার মোঃ মোস্তফা কামাল। চাকুরির সুবাদে ২০০৩ সালে শান্তি মিশনে কুয়েতে গমন করেন তিনি। কুয়েতে যাবার সময় তিনি কেয়ারটেকার হিসেবে তার স্থাবর-অস্থাবর যাবতীয় সম্পত্তি রক্ষার দায়িত্ব দিয়ে যান আপন ভগ্নিপতি আনোয়ার সিকদারকে। ভুক্তভোগী নৌ-বাহিনীর পেটি অফিসার মোস্তফা কামাল জানান, তার সম্পত্তি রক্ষণাবেক্ষনের জন্য জমিজমার যাবতীয় কাগজপত্র আনোয়ার সিকদারকে বুঝিয়ে দেওয়ার সুযোগে তিনি মিশনে যাবার পরে আনোয়ার তাদের সম্পত্তি আত্মসাতের পরিকল্পনা করেন। এদিকে জামির মূল মালিক তার মরহুম পিতা আনোয়ার মিয়ার নামের সাথে কেয়ারটেকার আনোয়ার সিকদারের নামের মিল থাকার সুযোগে আনোয়ার মোহনগঞ্জ বাজারের ছাতিয়া মৌজার ১ নং খতিয়ানের ৪৬৮/৬৩৩ নং দাগে অবস্থিত সরকারি বন্দোবস্ত নেওয়া তাদের দোকানঘরটি প্রায় ৫ বছর আগে ১ লাখ ৪০ হাজার টাকায় ভাড়াটিয়া কামরুলের কাছে গোপনে বিক্রি করে দেন। এদিকে কুয়েত প্রবাসী মোঃ মোস্তফা কামাল তার একসনা বন্দোবস্ত পাওয়া দোকানের ইজারা নবায়নের জন্য প্রতিবছর টাকা পাঠালেও কেয়ারটেকার আনোয়ার গত ৫ বছর থেকে ভূমি অফিসে লিজের টাকা জমা না দিয়ে তা আত্মসাৎ করেন। এছাড়াও তিনি ওই দোকানের বরাদ্দ বাতিল করে ক্রেতা কামরুলের নামে নতুন ইজারা নেওয়ার জন্য চলতি বছরের ২৭ এপ্রিল উপজেলা ভূমি অফিস থেকে একটি নোটিশ (নং-৩৬১/১৬) জারি করিয়ে সেটা গোপন রাখেন। কেয়ারটেকার আনোয়ার

সিকদারের এসব চক্রান্তের খবর ফাঁস হয়ে গেলে প্রবাসী মোস্তফা কামাল তার ছেলেকে ভূমি অফিসে পাঠিয়ে ইজারা নবায়নের আবেদন করেলেও ওই আবেদন অফিস থেকে গায়েব করে দেন কেয়ারটেকার আনোয়ার সিকদার। এছাড়াও কামরুলকে দখলী মালিক সাজিয়ে তার নামে নতুন ইজারা গ্রহনের আবেদন করেন বলে জানান ভুক্তভোগী নৌ-কর্মকর্তা মোস্তফা কামাল। তিনি আরো জানান, কেয়ারটেকার আনোয়ারের এসব জালিয়াতির খবর পেয়ে কয়েকদিন আগে কুয়েত থেকে তিনি দেশে ছুটে আসেন এবং গত ৮ জুন তিনি সশরীরে ভূমি অফিসে গিয়ে দোকানঘরের ইজারা নবায়নের জন্য আরেকটি আবেদন (নং-৪৯৩) করেন। দেশে ফিরে আসার পরে তিনি আরো জানতে পারেন তার অনুপস্থিতির সুযোগে তাদের পৈত্রিক সম্পত্তির প্রায় ১৪ শতাংশ জমি কেয়ারটেকার আনোয়ার সিকদার দখল করে নিজে দখলী মালিক সেজে এর অধিকাংশই নিজের নামে বন্দোবস্ত নিয়েছেন। বসতবাড়ির ৪৭২ দাগে বিদেশি টাকায় স্থাপন করা একটি গভীর নলকুপ, একটি অগভীর নলকুপ এবং একটি টিনের বসতঘরও এখন নিজের নামে বন্দোবস্ত নেওয়ার পায়ঁতারা চালাচ্ছেন কেয়ারটেকার আনোয়ার সিকদার। এছাড়া বিদেশে থাকাকালীন তাকে দিয়ে কেনানো ৩০ হাজার ইটও আনোয়ার সিকদার আত্মসাৎ করে সেটা দিয়ে দখলকৃত শ্বশুড়ের জমিতে নিজের বিল্ডিং তৈরি করেন। এসব প্রতারণার ঘটনায় কেয়ারটেকার আনোয়ার সিকদারের কাছে ব্যাখ্যা চাইলে তিনি এখন মোহনগঞ্জ বাজারের কিছু প্রভাবশালী ব্যবসায়ী ও স্থানীয় একটি সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে তাকে হত্যার পরিকল্পনাসহ বিভিন্ন ভয়ভীতি ও হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী নৌ-বাহিনীর পেটি অফিসার (অব.) মোঃ মোস্তফা কামাল। এদিকে এসব সকল অভিযোগ অস্বীকার করে অভিযুক্ত আনোয়ার সিকদার বলেন, এটা আত্মীয়-স্বজনের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির কারণে হয়েছে। আমি দীর্ঘদিন ধরে যতটুকু সম্পত্তি ভোগদখল করছি ততটুকুই ভূমি অফিস থেকে রেকর্ড আর ইজারা পেয়েছি। তাছাড়া দোকান বিক্রির পরে কামরুল তার নিজের নামে বিদ্যুতের মিটারও পেয়েছে। তাই দখলী মালিক হিসেবে সে নতুন ইজারা পাওয়ার আবেদন করেছে। তবে ইজারা নেওয়া সরকারি সম্পত্তি বিক্রি করার বিধান আছে কিনা এমন প্রশ্নের কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি অভিযুক্ত আনোয়ার সিকদার। এ বিষয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) বিবি খাদিজা জানান, ইজারা বা বন্দোবস্ত নেওয়া সরকারি খাসজমি ক্রয়-বিক্রয় আইনত দ-নীয়। ওই দোকানের জন্য পাল্টাপাল্টি দুইটি আবেদন পাওয়া গেছে। তবে তদন্ত করে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>