রাজন-তুফানের মত কর্মী প্রয়োজন নেই: ওবায়দুল কাদের

আপডেট : August, 7, 2017, 11:57 pm

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বিদেশি অথবা আদালত ক্ষমতায় বসাবেন- এমন দিবা স্বপ্ন যারা দেখছেন, তাদের সেই রঙিন স্বপ্ন তাসের ঘরের মতো ভেঙে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

এমন কি জাতীয় সংসদ ভেঙে দেওয়ার স্বপ্নও বাস্তবায়ন হবে না বলে মন্তব্য করেন ছাত্রলীগের সাবেক এই সভাপতি।

সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্র মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধুর  সহধর্মীনি বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিবের জন্মদিন উপলক্ষে এক ছাত্রী সমাবেশে তিনি আরও বলেন, ছাত্রলীগকে সুনামের ধারায় ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে। বিশ্বজিৎ  হত্যায় ফাঁসির প্রাপ্ত রাজন ও বগুড়ার ধর্ষক তুফানের মত কর্মী ছাত্রলীগে প্রয়োজন নেই।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যায় ছাত্রলীগ আয়োজিত এই আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব  করেন সংগঠনের সভাপতি আবিদ আল হাসান। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোতাহের হোসেন প্রিন্সের সঞ্চালনায় সভায় শহীদকন্যা ডা. নুজহাত চৌধুরী, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ, সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন, লিপি আক্তার ও ফরিদা পারভীন বক্তৃতা করেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির আন্দোলন এখন টেমস্‌ নদীর তীরে খালেদা জিয়ার ভ্যানেটি ব্যাগে। তিনি আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে সেখানে বসে শেখ হাসিনার সরকারকে হটাতে ষড়যন্ত্রের পথ বেছে নিয়েছেন। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের উদ্দেশে সেতুমন্ত্রী বলেন, তারা আন্দোলনের ডাক দিচ্ছে। কিন্তু কেউ সাড়া দিচ্ছে না। ঈদের পরে আন্দোলনের কথা বলা হয়েছে। কিন্তু কতো ঈদ চলে গেছে। তারা আন্দোলন করবেই বা কিভাবে? আন্দোলনের জন্য যে জনগণ লাগবে, সেই

জনগন তো শেখ হাসিনার সঙ্গে। সুতরাং কোনো ষড়যন্ত্রই উন্নয়নের মহাসড়কে চলার পথে বিঘ্ন সৃষ্টি করতে পারবে না। সেদিন আর বেশি দূরে নয়। কে কার সঙ্গে কোথায় ষড়যন্ত্র করছে, সেটা সরকারের জানা আছে। এর জবাব দেওয়া হবে।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকার হবে শেখ হাসিনার সরকার। নির্বাচন হবে নির্বাচন কমিশনের অধীনে। এটাই সংবিধান। সরকার সংবিধানের বাইরে যাবে না। তিনি আরও বলেন, সময়ের পরিবর্তন ও বাস্তবতার প্রয়োজনে আওয়ামী লীগের কৌশল পরিবর্তন হতে পারে। কিন্তু বিশ্বাসের জায়গা থেকে এক চুলও নড়চড় করেনি আওয়ামী লীগ। মরণের ভাগাড়ে দাঁড়িয়েও আওয়ামী লীগ বার বার জীবনের জয়গান গেয়েছে।

সেতুমন্ত্রী বলেন, এদেশের রাজনীতিতে মুজিব পরিবারই হচ্ছে সততা ও আদর্শের প্রতীক। এই পরিবারের কোনো ‘হাওয়া ভবন’ নেই। ক্ষমতার বিকল্প সেন্টার নেই। সজীব ওয়াজেদ জয় দেশে আসেন। দুই-একটি সৃজনশীল অনুষ্ঠান ছাড়া তাকে কোথাও দেখা যায় না। অথচ চরিত্র হননের ছুরি দিয়ে এই পরিবারকে প্রশ্নবিদ্ধ করার কম অপচেষ্টা হয়নি। তিনি আরও বলেন, শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব শুধু বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিনীই ছিলেন না। তিনি বঙ্গবন্ধুর যোগ্য রাজনৈতিক সমর্থক।

আগস্টে বিলবোর্ডের নামে বাড়াবাড়ি ও চাঁদাবাজী না করায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের ধন্যবাদ জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, যথা সময়েই ছাত্রলীগের সম্মেলন হবে। সম্মেরনের জন্য কিছু সাংগঠনিক ঘাটতি আছে। এই ঘাটতি পূরণ করে কিছুদিনের মধ্যেই সম্মেলন করার জন্য ছাত্রলীগ নেতাদের কানে কানে বলে দেওয়া হয়েছে।

Facebook Comments