রাজাপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে যুবককে নির্যাতন ও ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ

মে ২৭ ২০১৭, ২৩:৩৭

ঝালকাঠির রাজাপুরের সাতুরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা সিদ্দিকুর রহমান ও তার লোকজনের বিরুদ্ধে নাজমুল হোসেন রাহাত হাওলাদার (৩৫) নামে এক যুবককে ৪ দফা অমানুষিকভাবে শারীরিক নির্যাতন করে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার বেলা ১১ টায় রাজাপুর সাংবাদিক ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এসব অভিযোগ করেন ওই যুবকের মা জয়িতা হেলেনা বেগম। রাহাত হাওলাদার উপজেলার দক্ষিণ তারাবুনিয়া গ্রামের মোঃ দেলোয়ার হোসেন মাষ্টারের ছেলে। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে হেলেনা বেগম অভিযোগ জানান, গত ২৪ মে সকালে নাজমুল হোসেন রাহাত স্থানীয় সিকদার মার্কেটের চা দোকানদার একই গ্রামের মৃত মোবারক হাওলাদারের ছেলে সাতুরিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমানের সহযোগী মোঃ ইউসুব আলীর চা দোকানে হেলেনার প্রতিষ্ঠানের কয়েকজন কর্মীদের নিয়ে প্রতিদিনের ন্যায় চা খাওয়া শেষে দোকানদার ইউসুফ আলীর কাছে পূর্বের পাওনা ৩ হাজার ৭শ’ টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করিয়া কথার কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে দোকানদারের দোকানে থাকা ২ ছড়া পাকা কলা ও একটি ফ্ল্যাক্স দোকানদার নিজেই ভেঙ্গে চুরে আমার ছেলের বিরুদ্ধে চেয়ারম্যান সিদ্দিকের কাছে জানালে চেয়ারম্যান সিদ্দিক তার সহযোগী মোঃ মনু, মাহমুদ, জাহাঙ্গীর ও বাবুসহ আর কয়েকজনকে নিয়ে এসে হেলেনার বাড়ির সামনে থেকে ধরে রাহাতকে মারপিট করে চেয়ারম্যান নিজে ও তার বাহিনীরা মিলে মোটর সাইকেল যোগে তুলে নিয়ে প্রথমে স্থানীয় আমতলা বাজার, লেবুবুনিয়া বাজারে ও নৈকাঠী বাজারে নিয়ে ৪ দফায় মারপিট করে বিবস্ত্র করে ফেলে। হেলেনা বেগম সংবাদ সম্মেলনে আরও অভিযোগ করে জানান, এক পর্যায়ে রাহাত জ্ঞান হারালে তাকে রাজাপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা পর জ্ঞান ফিরলে রাহাতকে ভয় দেখিয়ে তাহার

কাছ থেকে কয়েকটি অলিখিত স্টাম্পে স্বাক্ষরসহ মৌখিক শিখিয়ে দেওয়া জবানবন্দি মোবাইলে রেকর্ড করিয়ে নেয় এবং চেয়ারম্যানের অবৈধ ইয়াবা ব্যবসার ইয়াবা হইতে ৪ পিস ইয়াবা রাহাতের গোমরে দিয়ে পুলিশ খবর দিয়ে তাকে ফাঁসিয়ে দেয়। বর্তমানে সিদ্দিক চেয়ারম্যান তাহার ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে ও নিজে মোবাইলে ফোন করে তাদের হত্যাসহ বিভিন্ন ভাবে ক্ষতি করার হুমকি দিচ্ছে। সিদ্দিক চেয়ারম্যানের কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে এসব করে যাচ্ছে এবং এসব ঘটনায় শনিবার দুপুরে রাজাপুর থানায় জিডি করতে গেলে জিডি নেয়নি বলেও অভিযোগ করেন হেলেনা। হেলেনা বলেন, তার ছেলেকে মারধর করে বিবস্ত্র করে ফেলে হাসপাতালে নিয়ে যায়, পরে তার কাছ থেকে কিভাবে ইয়াবা পেল?। মাদককুনয়ন্ত্রনে প্রশাসন ব্যবস্থা নিবে কিন্তু ৪ দফা মারধর করায় প্রমান হয় যে এটা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তার নির্দোষ ছেলেকে ফাঁসানো হয়েছে। তিনি তার নিরপরাধ ছেলের উপর নির্মম অত্যাচার করে মাদক দিয়ে ফাঁসানের মূলহোতা ইউপি চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমানের বিচার দাবি করেন। এ ব্যাপারে সাতুরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, রাহাত দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় মাদকের সাথে জড়িত, তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন লোকের কাছে চাদাদাবির অভিযোগ রয়েছে। রাহাতের মা-বাবাও বিভিন্ন সময় তার ছেলেকে মাদকের পথ থেকে ফেরাতে থানায়ও গিয়েছে কয়েকবার। ইয়াবাসহ তাকে আটক করে স্থানীয়লোক তাকে মারধর করেছে করেছে বলেও দাবি করেন ইউপি চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান। রাজাপুর থানার ওসি শেখ মুনীর উল গীয়াস জানান, স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে নয়, ঘটনাস্থল দক্ষিণ তারাবুনিয়া থেকেই ইয়াবাসহ আটক করা হয়। রাহাত মাদকের সাথে জড়িত দীর্ঘদিন থেকে এবং মারধরের বিষয়টি তদন্তে বিস্তারিত জানা যাবে, জানান ওসি।

Facebook Comments

<a href=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/infra-add.jpg” target=”_blank” rel=”noopener”><img src=”http://barisallive24.com/wp-content/uploads/2017/05/Hoopers1.jpg” width=”331″ height=”270″ /></a>