শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ

আপডেট : May, 17, 2017, 9:52 am

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ। ১৯৭৫ সালে পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর দীর্ঘদিন প্রবাসে নির্বাসন কাটিয়ে ১৯৮১ সালে আজকের দিনে স্বদেশে ফেরেন শেখ হাসিনা। দেশে ফিরে জাতির জনককে হারিয়ে বিধ্বস্ত আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করেন তিনি। পরবর্তী সময়ে তাঁর দৃঢ় নেতৃত্বের সুবাদে আওয়ামী লীগ তিনবার রাষ্ট্রক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়।

দেশি-বিদেশি চক্রান্তে সেনাবাহিনীর কিছু বিপথগামী সদস্য ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাসভবনে হামলা চালিয়ে জাতির জনক ও তাঁর পরিবারের সব সদস্যকে নির্মমভাবে হত্যা করে। বঙ্গবন্ধুর দুই মেয়ে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা সে সময় বিদেশে অবস্থান করায় প্রাণে বেঁচে যান। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে যে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম হয়েছিল সে দেশেই তাঁর দুই সন্তানকে অবাঞ্ছিত করা হয়। প্রতিকূল পরিস্থিতিতে বিভিন্ন দেশ ঘুরে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানার ঠাঁই হয় প্রতিবেশী দেশ ভারতে। এরপর দীর্ঘদিন সেখানেই নির্বাসিত জীবন কাটান তাঁরা।

অন্যদিকে বঙ্গবন্ধুকে হারিয়ে দিগ্ভ্রান্ত হয়ে পড়ে আওয়ামী লীগ। ডুবন্ত আওয়ামী লীগকে পুনরুজ্জীবিত করতে ১৯৮১ সালের ১৪, ১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত কাউন্সিলে শেখ হাসিনার অনুপস্থিতিতেই তাঁকে সর্বসম্মতিক্রমে দলের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। এরপর ১৯৮১ সালের ১৭ মে ঢাকায় ফেরেন শেখ হাসিনা। সেদিন তাঁকে স্বাগত জানাতে ঢাকায় সমবেত হয় লাখো মানুষ। প্রতিকূল আবহাওয়ার মধ্যেই লাখো মানুষ বঙ্গবন্ধুকন্যাকে স্বাগত জানায়। স্লোগানে স্লোগানে মুখর হয় ঢাকার রাজপথ। গণমানুষের সংবর্ধনার জবাবে সেদিন শেখ হাসিনা বলেন, ‘সব হারিয়ে আমি আপনাদের মাঝে এসেছি।

আপনাদের নিয়েই আমি বঙ্গবন্ধুর নির্দেশিত পথে তাঁর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করে বাংলার দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে চাই। ’

এরপর নানা প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করেন শেখ হাসিনা। তাঁকে হত্যার উদ্দেশ্যে অসংখ্যবার হামলা চালানো হয়। কিন্তু তিনি পিছু হটেননি। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ২১ বছর পর তিনি আওয়ামী লীগকে আবারও রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় নিয়ে যান। মাঝে একবার বিরতির পর ২০০৮ সালে আবারও সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। সেই থেকে এখন পর্যন্ত টানা ক্ষমতায় আছে দলটি। এর কৃতিত্ব শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বকেই দিয়ে থাকে দলটির নেতাকর্মীরা।

কর্মসূচি : শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসটিকে বিশেষ গুরুত্বের সঙ্গে পালন করবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলো। এ উপলক্ষে আজ নেওয়া হয়েছে নানা কর্মসূচি। সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবনে শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ ও শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা। দুপুর আড়াইটায় খামারবাড়ির কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হবে আলোচনাসভা।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গতকাল এক বিবৃতিতে শেখ হাসিনার সুন্দর জীবন ও দীর্ঘায়ু কামনা করে দেশব্যাপী নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালনের জন্য আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

এদিকে দিবসটি উপলক্ষে গতকাল বিকেলে যুবলীগের আয়োজনে রাজধানীতে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ। সভাপতিত্ব করেন যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী। বক্তব্য দেন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য আনোয়ারুল ইসলাম প্রমুখ।

Facebook Comments