বরিশাল লাইভ

ঢাকা, জানুয়ারি ২২, ২০১৫

প্রকাশ : জানুয়ারি ২২, ২০১৫ , ৮:২১ অপরাহ্ণ
বরিশাল থেকে নৌ ও সড়ক পথে বিশেষ নিরাপত্তা পদক্ষেপ

পুলক চ্যাটার্জি, অতিথি প্রতিবেদক ॥  নৌ ও সড়ক পথে যাত্রীদের নিরাপদ ও ঝুঁকিমুক্ত চলাচল নিশ্চিত করতে পুলিশ প্রশাসন ও বরিশাল নৌ বন্দর কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন নিরাপত্তা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। গত বুধবার বরিশাল নৌ বন্দর মিলনায়তনে নৌ যান মালিক, বন্দর কর্তৃপক্ষ ও পুলিশ প্রশাসনের ত্রি-পাক্ষীয় বিশেষ বৈঠকে বিভিন্ন নিরাপত্তা পদক্ষেপ নেওয়া হয়। অপরদিকে নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে প্রতিদিন রাত সাড়ে ৮টায় একযোগে ছেড়ে যাবে দহৃরপাল্লার বাস। পুলিশ প্রহরায় ওই বাসগুলো নিজ নিজ গন্তব্যে যাবে।

গত বুধবার রাত থেকে একযোগে দুরপাল্লার বাস চলাচল কার্যত্রক্রমের সহৃচনা করেন মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার শৈবাল কান্তি চৌধুরী। বিআইডব্লিউটিএ’র বরিশাল শাখার নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের উপ-পরিচালক আবুল বাসার মজুমদার জানান, গতকাল অনুষ্ঠিত সভায় লঞ্চ টার্মিনাল এলাকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ২৪ ঘন্টা পুলিশ প্রহরা, মোটরসাইকেল নিয়ে প্রবেশ নিষিদ্ধ এবং টার্মিনালে কোন ভাসমান লোকজন থাকতে না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। নৌ যান মালিকরা নিজস্ট^ উদ্যোগে যাত্রীদের ভিডিও চিত্র ধারণ করবেন এবং জাহাজের পেছনের অংশে ও ইঞ্জিন কক্ষে নিয়মিত আনসার প্রহরা রাখবেন। যাতে নৌকায় করে এসে দুর্বৃত্তরা কোন ধরনের নাশকতা না করতে পারে। লঞ্চের কেবিন বুকিংয়ের ক্ষেত্রে যাত্রীর জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, মোবাইল নম্বর সংরক্ষণ এবং পুরো টাকা রেখে টিকিট দেওয়ার ব্যবস্থা চালু করবেন লঞ্চ মালিক কর্তৃপক্ষ। টিকিট দেখে সংশ্লিষ্ট যাত্রীকে তার কেবিনের চাবি দেওয়া হবে। যার ফলে কোন

লঞ্চের কেবিনে নাশকতার ঘটনা ঘটলে ওই যাত্রীকে শনাক্ত করা যায়। নৌ বন্দর কর্তৃপক্ষ এবং মেট্রোপলিটন পুলিশ সন্দেহভাজন যাত্রীদের তল্লাশি ও প্রয়োজনে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করবে। কালোবাজারে লঞ্চের কেবিন বিক্রি যাতে না হয় সেজন্য মালিক কর্তৃপক্ষকে সভা থেকে বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হয়েছে। গত বুধবার সন্ধ্যায় নৌ বন্দর মিলনায়তনে বন্দর কর্মকর্তা গুলজার আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় ঢাকা-বরিশাল নৌ রুটে চলাচলকারী সালমা শিপিং করপোরেশনের স্বত্ত্বাধিকারী মঞ্জুরুল আহসান ফেরদৌস এবং সুন্দরবন, সুরভী ও পারাবত লঞ্চ কোম্পানির প্রতিনিধিবৃন্দ, মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) গোলাম রউফ খান, বিআইডব্লিউটিএ’র যুগ্ম পরিচালক শাহজল হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, বিএনপির অবরোধ কর্মসূচী শুরু হওয়ার পর বরিশাল নৌ বন্দরে ঢাকাগামী বিভিন্ন লঞ্চে একের পর এক নাশকতার ঘটনায় সড়ক পথের পাশাপাশি নৌ পথের যাত্রীদের মধ্যেও আতঙ্কের সৃস্টি হয়। এ কারণে গত বুধবার ওই বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত হয় বলে সংশ্লিষ্ট দায়িতœশীল সুত্র জানিয়েছে। এদিকে মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) সহকারী কমিশনার আজাদ রহমান জানান, গত বুধবার রাত সাড়ে ৮টায় বরিশাল নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে রাজধানী ঢাকাসহ দহৃরপাল্লার পরিবহণগুলো যাত্রী নিয়ে একযোগে ছেড়ে গেছে। এখন থেকে প্রতিদিন রাত সাড়ে ৮টায় বরিশাল কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে সকল দহৃরপাল্লার বাস পুলিশ প্রহরায় যাত্রী পরিবহণ করবে। বাস ছাড়ার আগে যাত্রীদের ভিডিও চিত্র ধারণ করা হবে। যাত্রীদের মধ্যে কেউ নাশকতাকারী থাকলে যাতে তাকে চিহিত করা সম্ভব হয়।

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর