বরিশালে ডিবিসির ক্যামেরাম্যান নির্যাতনের ঘটনায় ডিবি পুলিশের আট সদস্য প্রত্যাহার বরিশালে ডিবিসির ক্যামেরাম্যান নির্যাতনের ঘটনায় ডিবি পুলিশের আট সদস্য প্রত্যাহার - For update barisal news visit barisallive24.com
বরিশাল, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং। সর্বশেষ আপডেট: ৬ ঘন্টা আগে
শিরোনাম

লাইভ রিপোর্ট


বরিশালে ডিবিসির ক্যামেরাম্যান নির্যাতনের ঘটনায় ডিবি পুলিশের আট সদস্য প্রত্যাহার

মার্চ ১৩, ২০১৮ ৪:৫৬ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  বরিশাল নগরীতে গোয়েন্দা ডিবি পুলিশের নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়েছে ডিবিসি নিউজ এর বরিশাল ব্যুরোর ক্যামেরা পার্সন ও বরিশাল ফটো সাংবাদিক ঐক্য পরিষদের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সুমন হাসান। মঙ্গলবার দুপুরে নগরীর বিউটি রোডে এই ঘটনায় সাংবাদিকদের দাবীর পরিপ্রেক্ষিতে মহানগর গোয়েন্দা ডিবি’র একজন এসআই ও দু’জন এএসআই সহ আটজকে ক্লোজ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকালে তাদেরকে ক্লোজড করে পুলিশ লাইন্সএ সংযুক্ত করা হয়েছে। তাছাড়া ডিবি পুলিশের নির্যাতনের শিকার ডিবিসি’র ক্যামেরা পার্সন সুমন হাসানকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারী বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে।

ক্লোজড হওয়া ডিবি পুলিশের সদস্যরা হলো- উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল বাসার, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আক্তার হোসেন ও স্বপন। এছাড়া পাঁচ কনেস্টেবল হলো মাসুদ, রাসেদ, হাসান, রহিম ও সাইফুল।

এদিকে সাংবাদিকের উপর নির্যাতনের ঘটনায় আন্দোলন কর্মসূচি গ্রহন করেছে বরিশালে কর্মরত ফটো গ্রাফারদের পেশাজীবী সংগঠন বরিশাল ফটো সাংবাদিক ঐক্য পরিষদ। বুধবার সকাল ১০টায় তারা সদর রোডে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন করবেন বলে জানিয়েছেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক রাতুল আহমেদ।

ডিবিসি’র নির্যাতিত সাংবাদিক সুমন হাসান জানান, আজ দুপুরে অফিস থেকে বাসায় যাওয়ার পথে এক নিকটাত্মিয়কে গোয়েন্দা পুলিশের আটকের খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে যান এবং আটকের কারন জানতে চান। এ সময় যাদের আটক করা হয়েছে, তাদের সাথে তার বাকবিতন্ডা হয়।

এক পর্যায়ে গোয়েন্দা পুলিশ তার পরিচয় জানতে চায়। সাংবাদিক পরিচয় দেয়া মাত্রই তার উপর চড়াও হয় গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা। এ সময় প্রকাশ্যে তার পড়নে থাকা টি-শার্ট টেনে হিচড়ে এবং পেটাতে পেটাতে তাকে গাড়িতে তোলে। পথিমধ্যে তার অন্ডকোষ চেপে ধরা সহ তাকে অমানুসিক নির্যাতন এবং ক্রোস ফায়ারের হুমকি দিয়ে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যায়।

এদিকে খবর পেয়ে তার সহকর্মীরা নগরীর পলিটেকনিক রোডে নগর গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে ছুটে যান। সেখানে নির্যাতিত সাংবাদিক সুমনকে হাতকড়া পড়িহিত অবস্থায় কাঁদতে দেখে ক্ষোভে ফেঁটে পড়েন তার সহকর্মীরা। এ সময় সাংবাদিক সুমনকে নির্যাতনকারী প্রধান অভিযুক্ত কনস্টেবল মাসুদ একজন সাংবাদিককে লাথি দেয়।

এতে সাংবাদিকরা ক্ষোভে ফেঁটে পড়েন। তখন মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার (দক্ষিন) গোলাম রউফ খান সাংবাদিকদের শান্ত করে তার অফিস কক্ষে নিয়ে যান। সেখানে সকল সাংবাদিকের দাবীর প্রেক্ষিতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের পরামর্শ মোতাবেক নগর গোয়েন্দা পুলিশের ওই দলে থাকা ৮ সদস্যকে মেট্রোপলিটন পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার (ক্লোজড) করা হয়।

ডিবি পুলিশের দায়িত্বে থাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার উত্তম কুমার পাল ও উপ-পুলিশ কমিশনার গোলাম রউফ খান সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় দুঃখ এবং ক্ষমা চেয়ে বলেন, বিষয়টি আমরা গুরুত্বের সাথেই নিয়েছি। এই ঘটনায় জারা জড়িত রয়েছে তাদের শুধু ক্লোজডই নয়। তাদের বিরুদ্ধে আরো কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে আশ্বাস্ত করেন।

পাঠকের মতামত:

[wpdevart_facebook_comment facebook_app_id="322584541559673" curent_url="" order_type="social" title_text="" title_text_color="#000000" title_text_font_size="22" title_text_font_famely="monospace" title_text_position="left" width="100%" bg_color="#d4d4d4" animation_effect="random" count_of_comments="3" ]
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য
TECHNOLOGY: SPIDYSOFT IT GROUP