এতিমের টাকা মেরে খেয়ে এখন নির্বাচন করতে চায়- প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : July, 18, 2017, 9:19 am

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ যারা এতিমের টাকা মেরে খায় তারা আবার নির্বাচন করতে চায়। গতকাল সোমবার মন্ত্রিসভার নিয়মিত সাপ্তাহিক বৈঠকে অনির্ধারিত আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কথা বলেন। তিনি বলেন, একটি মহল আগামী নির্বাচন যাতে হতে না পারে সেজন্য ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। কারণ নির্বাচন না হলে ওই মহলটি বেশ সুবিধা পায়। একারণে তিনি সকলকে চোখ-কান খোলা রেখে সতর্কতার সঙ্গে এগিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।

বৈঠকের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। তবে সরকারিভাবে এ বিষয়ে কিছু বলা হয়নি। মন্ত্রিসভার কয়েকজন সদস্য প্রসঙ্গক্রমে নির্বাচনের সময় সেনাবাহিনীকে বিচারিক ক্ষমতা প্রদান করে মাঠে মোতায়েন সম্পর্কে বিএনপির দাবি উল্লেখ করে বলেন, এর যৌক্তিকতা নেই। এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, নির্বাচনকালে সার্বিক কর্তৃত্ব নির্বাচন কমিশনের হাতেই থাকে। নির্বাচন কমিশন বিবেচনা করবে কী করা হবে আর কী করা হবে না। নির্বাচন কমিশন কর্তৃক ঘোষিত রোডম্যাপ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে সকলকে কথা বলতে নিষেধ করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্ত্রিসভার সদস্যদের উদ্দেশে বলেন, আগামী নির্বাচন যাতে না হয় এজন্য বিভিন্ন ধরনের ষড়যন্ত্রের চেষ্টা হচ্ছে। সবাইকে ভয়-ভীতির ঊর্ধ্বে থেকে চোখ-কান খোলা রেখে কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, সংবিধান অনুযায়ি আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কিভাবে নির্বাচন হবে ওই কথা সংবিধানেই বলা

হয়েছে। এনিয়ে কথা বলার দরকার নেই। কিছু মানুষ আছে নির্বাচন চায় না। নির্বাচন না হলে অনির্বাচিতরা ক্ষমতায় বসবে। আমরা চাই সব রাজনৈতিক দল নির্বাচনে আসুক।               সব দল নির্বাচনে এলে ভালো হয়। কিন্তু  কোনো দল যদি নির্বাচনে না আসে তাহলে তো কিছু করার নেই।

সূত্র জানায়, নির্বাচন কমিশন ঘোষিত রোডম্যাপ নিয়ে মন্ত্রিসভার সদস্যদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, রোডম্যাপ ইসির বিষয়। এই রোডম্যাপ নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে আপনারা কোন মন্তব্য করবেন না। এ বিষয়টি আপনাদের মনে রাখতে হবে। নির্বাচন কমিশনের রোডম্যাপ বাস্তবায়ন ও কার্যকারিতা দেখতে হবে। এ জন্য কিছুটা সময় প্রয়োজন। কাজেই আগে থেকে এ বিষয়টি নিয়ে কোন ধরনের মন্তব্য করা ঠিক হবে না।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, মন্ত্রিসভার বেশিরভাগ সদস্য নির্বাচনের সময় সেনা মোতায়েনের বিপক্ষে কথা বলেন। তারা বলেন, নির্বাচনের সময় পুলিশ ও র্যাবসহ অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী পরিবেশ বজায় রাখতে পারবেন। তবে নির্বাচন কমিশন চাইলে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে সেনা মোতায়েন করতে পারে। বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার যুক্তরাজ্য সফর নিয়ে কোন কোন মন্ত্রী বলেন, সাজার ভয়ে কি খালেদা জিয়া দেশ ছেড়েছেন? এমন প্রশ্ন এখন দেশের অনেক মানুষই করছে।

সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সভাপতিত্ব করেন। সভায় মন্ত্রীবর্গ ও প্রতিমন্ত্রীগণ ও সংশ্লিষ্ট সচিবরা উপস্থিত ছিলেন।

Facebook Comments