হিজলার আওয়ামীলীগ কোন পথে ?

আপডেট : March, 21, 2017, 7:35 pm

হিজলা প্রতিনিধি
হিজলার আ’লীগ রজনীতিতে অনম্বি সংকেত ! কোন পথে পাড়ি জমাচ্ছে হিজলার ভাবি আ’লীগ? চারদিকে আ’লীগের জয়জয়কার থাকলেও এর মাঝে নিরবতার গন্ধ ছড়াচ্ছে হিজলায়। পক্ষে বিপক্ষে নানা আয়োজন হচ্ছে-হিজলার আওয়ামীলীগে। অতি সম্প্রতি জেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এটি আরও জোড়ালো আকার ধারণ করছে। স্থানীয় ভাবে একটি পক্ষ এমপির দিকে ধাবিত হচ্ছে-অপরটি উপজেলা চেয়ারম্যান বনাম আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহর পক্ষে। এ দোটানায় এখন অনেকটাই স্থিমিতি হয়ে পরেছে হিজলার মুল সংগঠন আওয়ামীলীগ। অতিসম্প্রতি হিজলা উপজেলার আওয়ামীলীগের বিভিনব অনুষ্ঠানমালায় দ্বিধা-দ্বন্দের গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। একটি অনুষ্ঠানে উপজেলা পরিষদ জেয়ারম্যান উপস্থিত থাকলে সেখানে নেই এমপি বা তার স-পক্ষের শক্তির লোক। কোথাও মুল আওয়ামীলীগের অনুষ্ঠান থাকলে আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ আছেনতো-মইদুল ইসলাম সেখানে। আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবসে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যন রাতেই ফুল দিয়ে বিদায় নেন হিজলা থেকে। বিকেলে একই অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন সংসদ সদস্য পংকজ নাথ। সেখানে আওয়মীলীগের নানা মুখ দেখলেও প্রতিপক্ষের গন্ধ পাচ্ছেন কেউ কেউ। কাউরিয়া

স্কুল এন্ড কলেজের ক্রিড়া অনুষ্ঠানে আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ বনাম উপজেলা চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদ টিপু থাকলে সে অনুষ্ঠানে নেই এমপির নাম নিশানা। এটিকে অনেকে শুধুমাত্র মাইনাস ওয়ান ফমূলায় ফেলে রেখেছেন। ২২ ফেব্রুয়ারী/১৭ সালে নবসৃষ্ট জয়নগর ইউনিয়নের পল্লীবিদ্যুতায়ন বোর্ডের বিদ্যু সংযোগ উদ্বোধনকে নিয়েও আলোচনায় রয়েছে দল মাইনাসের অভিযোগ। যোগ বিয়োগের সাথে মাইনাস হচ্ছে হিজলার উন্নয়ন। ঐ উন্নয়নেও অনেক ক্ষেত্রে দেখা মিলেনা দু’ উন্নয়ন কর্মী নেতাকেও। সর্ব শেষ হিজলা উপজেলা চেয়ারম্যানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ও বরণ নিয়ে আর একবার আলোচনায় এসেছে হিজলার আ’লীগ রাজনীতি। তবে বিষয়টি স্পষ্ট না হলেও তুষের আগুনে জ্বলছে দু উপজেলার আ’লীগ কর্মীবাহিনীর ভেতরে। এক সময়ের স্বজন এখন বিভাজন হয়ে মেঘনায় হাবুডুবু খাচ্ছেন মাইনাস র্ফমুলার কারণে। সম্পতি ঐ নেতাকেও আগের মতো করে এখন আর দেখা যাচ্ছে না দলীয় কোন কার্যক্রমে। তিনি এখন একলাচলো নীতিতে। একদিকে ভাইজানের লোক অপর দিকে এমপির লোক –এই দুয়ে মেচাকার হিজলার এবং কাজির হাট থানা আওয়ামীলীগ।

Facebook Comments