ঝালকাঠিতে স্ত্রী হত্যার অভিযোগে স্বামী গ্রেপ্তার

আপডেট : April, 3, 2017, 8:41 pm

ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃঝালকাঠির রাজাপুরে সিমা আক্তার (২৪) নামে এক গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগে স্বামী ও তাঁর ভগ্নিপতিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। স্বামী মিজান খন্দকারকে (৩৪) ঢাকার মতিঝিল থেকে ও ভগ্নিপতি মিজান হাওলাদারকে (৩০) রাজাপুরের সাউদপুর থেকে রবিবার রাতে গ্রেপ্তার করা হয়।
নিহত সিমা আক্তার পিরোজপুর সদর উপজেলার খামকাটা গ্রামের মৃত আমজেদ হোসেনে মেয়ে।
এ ঘটনায় নিহত সিমার বড়ভাই মাজেদুল ইসলাম বাদী হয়ে চারজনকে আসামী করে রবিবার (০২মার্চ) রাজাপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। আসামীরা হলো নিহত সিমা আক্তারে স্বামী মিজান খন্দকার তাঁর ভাই সবুজ খন্দকার, বোন শাহনাজ বেগম ও ভগ্নীপতি মিজান হাওলাদার। গত বৃহস্পতিবার (৩০ মার্চ) রাত ৩টার দিকে রাজাপুর উপজেলার সাউথপুর গ্রামের এনায়েত গোমস্তার বাড়িতে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। পরে লাশ বিষখালী নদীতে ফেলে দেওয়া হয়। ঘটনার তিনদিন অতিবাহিত হলেও এখনো নিহত গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ।
মামলার বিবরণে জানাযায়, তিন বছর আগে সিমা আক্তারের সাথে রাজাপুর উপজেলার বাঘড়ি গ্রামের কাশেম খন্দকারের ছেলে সৌদি প্রবাসি মিজান খন্দকারের বিয়ে হয়। মিজানের প্রথম পক্ষের স্ত্রী থাকায় দ্বিতীয় স্ত্রী সিমা স্বামীর বাড়িতে কখনো বসবাস করেনি। গত মঙ্গলবার (২৮ মার্চ) রাজাপুরে আলাদা বাসাভাড়া করা হয়েছে বলে মিজান তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রী সিমাকে পিরোজপুর থেকে রাজাপুরে নিয়ে আসেন। ৩০ মার্চ সিমা মুঠোফোনে তাঁর ভাই

বাদশাকে জানায়, সে বিপদের মধ্যে রয়েছে। এরপর সিমার আর কোন খবর পাওয়া যায়নি। সিমাকে হত্যা করে লাশ বিষখালী নদীতে ফেলে দেওয়া হয়েছে বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়।
রাজাপুর থানা পুলিশ জানায়, সিমাকে হত্যা করার পর স্বামী মিজান বিদেশে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছিল। মতিঝিল থানা পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে আটক করে। পরে  রাজাপুর থানায় পুলিশ আজ সোমবার সকালে ঢাকা থেকে তাকে নিয়ে আসে। এনায়েত গোমস্তা ও মিজান সৌদি প্রবাসি ও সেই সুবাদে তাঁরা বন্ধু। হত্যার পরে মৃতদেহ ওই রাতেই রাজাপুরের বিষখালী নদীতে ফেলে দেওয়া হয়। এতে সহায়তার অভিযোগে মিজান হাওলাদার নামে এক অটোরিকসা চালককেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সে মিজান খন্দকারের ভগ্নীপতি বলে জানিয়েছে পুলিশ।
গত তিনদিনে নিহত সিমা আক্তারের লাশ উদ্ধারের জন্য সিমার পরিবার ও পুলিশ একাধিক স্থানে অভিযান চালিয়েও তাঁর মৃতদেহ উদ্ধার করতে পারেনি।
এদিকে গ্রেপ্তার হওয়া এজাহারভুক্ত দুই আসামী মিজান খন্দকার ও মিজান হাওলাদারকে আজ সোমবার দুপুরে ঝালকাঠি আদালতে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ।
রাজাপুর থানার ওসি শেখ মুনীর উল গীয়াস বলেন, এঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে। লাশ এখনো উদ্ধার করা যায়নি। পলাতক আসামীদের গ্রেপ্তার করতে পারলে লাশের সন্ধান ও হত্যা কান্ডের রহস্য উদঘাটন করা যাবে। আমরা বাকী আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

Facebook Comments