আগামী জাতীয় নির্বাচনঃ মাঠে বরিশালের এক ডজন সম্ভাব্য প্রার্থী

আপডেট : April, 5, 2017, 10:30 am

আগামী জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বরিশালে নড়েচড়ে বসেছেন বিভিন্ন দলের সম্ভাব্য এমপি প্রার্থীরা। এরই মধ্যে এলাকায় এলাকায় তাদের আনাগোনাও বেড়েছে। নির্বাচনী মাঠ গোছাতে এসব প্রার্থী যোগ দিচ্ছেন বিভিন্ন কর্মসূচিতে। উন্নয়নের ফুলঝুরিও ছড়াচ্ছেন নানা আঙ্গিকে। জেলার ছয়টি সংসদীয় আসনে এমন এক ডজন প্রার্থীর তৎপরতা ভাবিয়ে তুলছে বর্তমান এমপিদের।

বরিশাল-১ (গৌরনদী-আগৈলঝাড়া) আসনে বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য জহির উদ্দিন স্বপন সম্প্রতি দলে আবারও ফিরে এসেছেন। এ নিয়ে চলতি মাসে গৌরনদীতে তার অনুসারীরা এলাকায় মিষ্টি বিতরণ করেন। এরই মধ্যে সক্রিয় হয়ে উঠেছেন তার সমর্থকরাও। গৌরনদীর খাঞ্জারপুর ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সভাপতি ফজলুল হক সরদার বলেন, সাবেক এমপি স্বপন দলে ফিরে আসায় তারা এলাকায় মিষ্টি বিতরণ করেছেন।

নেতাকর্মীদের আশা সামনের নির্বাচনে সাবেক এমপি হিসেবে জহির উদ্দিন স্বপন মনোনয়ন পেতে পারেন। কেননা স্বপন ২০০১ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের শক্ত প্রার্থীকে হারিয়েছিলেন। এসব কারণে এরই মধ্যে স্বপনের পক্ষে তারা কাজ করছেন। স্বপনও নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ রাখছেন।
বরিশাল-২ (উজিরপুর-বানারীপাড়া) আসনের সাবেক আওয়ামী লীগ দলীয় এমপি মনিরুল ইসলাম মনি হঠাৎ করেই সক্রিয় হয়ে উঠেছেন। কয়েক মাস ধরে তিনি দুই উপজেলায়ই আসা-যাওয়া বাড়িয়ে দিয়েছেন। বর্তমানে এলাকায়ই অবস্থান করছেন সাবেক এমপি মনি। সাবেক এমপি মনির কাছে এ প্রসঙ্গে জানতে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি সভায় আছেন বলে জানান। যদিও মনিরুল ইসলাম  মনির এক অনুসারী আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ২০০৮ সালে সাবেক এমপি বানারীপাড়া ও উজিরপুরের উন্নয়নে প্রায় দেড় থেকে ২ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কার্যক্রম হাতে নেন। এর ৭৫ শতাংশ উন্নয়ন এরই মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে।

তিনি বলেন, উন্নয়ন কার্যক্রম বেগবান করতে আগামী জাতীয় নির্বাচনে সাবেক এমপি মনিরুল ইসলাম মনি ফের প্রার্থী হতে যাচ্ছেন।জানা গেছে, এ আসনে আওয়ামী

লীগের অপর সম্ভাব্য প্রার্থী শাহে আলমকেও এলাকায় ইদানীং দেখা যাচ্ছে।
বরিশাল-৩ (বাবুগঞ্জ-মুলাদি) আসনের জাতীয় পার্টির সাবেক এমপি গোলাম কিবরিয়া টিপু ফের এ আসন থেকে প্রার্থী হচ্ছেন। তিনি এ লক্ষ্যে এরই মধ্যে দুই উপজেলায় জনসাধারণের সঙ্গে নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ রাখছেন। সাবেক এমপি টিপুর রাজনৈতিক সচিব মুকিতুর রহমান কিসলু বলেন, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য গোলাম কিবরিয়া টিপু এমপি থাকাকালীন ব্যাপক উন্নয়ন করেছিলেন। দুই উপজেলার সব খেয়ার ইজারামুক্ত করে দিয়েছিলেন। জনগণের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে এপ্রিলের শুরু থেকে তিনি এলাকায় এলাকায় গণসংযোগ শুরু করবেন। জাতীয় নির্বাচনে তিনি প্রার্থী হবেন অবশ্যই। যে কারণে নির্বাচন নিয়ে তিনি এরই মধ্যে নানা পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন। জানা গেছে, সাবেক প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানকের এপিএস মিজানুর রহমান হাওলাদারও এ আসন থেকে প্রার্থী হবেন।সে লক্ষ্যে তিনি এলাকায় নানা সামাজিক কর্মসূচিতে যোগ দিচ্ছেন।
বরিশাল-৪ (হিজলা-মেহেন্দিগঞ্জ) আসনে হঠাৎ করে তরুণ নেতৃত্ব আলোচনায় এসেছে। তিনি হলেন বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদের মেয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যকরী পরিষদের সদস্য ড. সাম্মি আহমেদ। জেলা পরিষদের নির্বাচনসহ বিভিন্ন কর্মসূচিতে ড. সাম্মিকে বেশ সরব দেখা যাচ্ছে। তার একাধিক ঘনিষ্ঠজন জানিয়েছেন, ড. সাম্মির এবার জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
বরিশাল-৫ (সদর) আসনে এবার আওয়ামী লীগ থেকে একজন জনপ্রতিনিধি ও একজন ব্যবসায়ী আগেভাগে এলাকায় নির্বাচনী মাঠ গোছাতে নড়েচড়ে বসেছেন। বিএনপি থেকেও এ আসনে দুই প্রার্থীর আনাগোনা দেখা গেলেও জেলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এ আসনে সম্ভাব্য প্রার্থীরা কেউ মুখ খুলতে চাচ্ছেন না।

বরিশাল-৬ (বাকেরগঞ্জ) আসনে সাবেক এক এমপি প্রার্থী হতে পারেন বলে জানা গেছে। এ লক্ষ্যে তিনি বাকেরগঞ্জে বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক কার্যক্রমের মাধ্যমে আগেভাগেই প্রচারণা চালাচ্ছেন বলে জানা গেছে।

সূত্রঃ দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশ

Facebook Comments