শীঘ্রই চালু হচ্ছে বরিশালের একমাত্র ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ

আপডেট : June, 18, 2017, 10:13 am

খান রুবেলঃ আগামী শিক্ষাবর্ষেই বরিশাল তথা দক্ষিণাঞ্চলের প্রথম এবং একমাত্র প্রকৌশল কলেজের একাডেমিক কার্যাক্রমের যাত্রা শুরু হতে যাচ্ছে। এজন্য বর্ধিত সময়ের মধ্যে নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করতে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগ।

এরই মধ্যে প্রায় ৮২ শতাংশ নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষা প্রকৌশল কার্যালয় বরিশাল জোন এর জ্যেষ্ঠ সহকারী প্রকৌশলী মো. কামরুল ইসলাম।

সম্পূর্ণ বাংলাদেশ সরকারের তহবিল প্রায় ১’শ কোটি টাকা ব্যয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজটি নির্মাণ হচ্ছে বরিশাল ভোলা সড়কের পার্শ্ববর্তি বরিশাল মহানগরীর অদুরে সদর উপজেলার চরকাউয়া ইউনিয়নে। আগামী বছর জুনের মধ্যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করে শিক্ষার্থী ভর্তি শুরু হবে।

তবে শিক্ষা ক্ষেত্রে দেশের অগ্রবর্তী দক্ষিণাঞ্চলে কারিগিরি শিক্ষার আন্ডার গ্রাজুয়েট পর্যায়ের কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ইতিপূর্বে ছিলো না বলে জানিয়েছেন প্রকল্প পরিচালক।

এদিকে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর বরিশাল জোন এর জ্যেষ্ঠ সহকারী প্রকৌশলী মো. কামরুল ইসলাম জানিয়েছেন, ২০০৮ খ্রিস্টাব্দের ৬ মার্চ তৎকালীন তত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা পরিষদের এক বৈঠক বরিশাল সার্কিট হাউজে অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান উপদেষ্টা ড. ফখরুদ্দিন আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে বরিশালে একটি প্রকৗশল মহাবিদ্যালয় স্থাপনের সিদ্ধান্ত গ্রহন করে উপদেষ্টা পরিষদ। তবে সে সময় ‘উন্নয়ন প্রকল্প সারপত্র-ডিপিপি’ প্রস্তুত ছাড়া প্রকল্পটির তেমন কোন অগ্রগতি হয়নি।

পরবর্তিতে মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর প্রথম মেয়াদে বরিশাল-ভোলা মহাসড়কে সদর উপজেলার চরকাউয়া ইউনিয়নে প্রায় ৬ একর জমির ওপর ‘বরিশাল ইঞ্জনিয়ারিং কলেজ’ নামক প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য ৮৮ কোটি ১১

লাখ টাকার ডিপিপি অনুমোদন লাভ করে।

আওয়ামীলীগ সরকারের প্রথম ৫ বছর মেয়াদের শেষের দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই কলেজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন। সে অনুযায়ী চলতি অর্থবছরের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করার কথা থাকলেও নানা জটিলতায় তা আর হয়ে ওঠেনি। বরং প্রকল্প ব্যয় এবং সময় বর্ধিত করা হয়েছে।

সংশোধিত ডিপিপি একনেকের অনুমোদনও লাভ করেছে। সংশোধিত ডিপিপি অনুযায়ী প্রকল্প ব্যয় ৯১ কোটি ৫৪ লাখ টাকায় উন্নীত হয়েছে। তাছাড়া আগামী ২০১৮ সালের ৩০ জুনের মধ্যে প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন করার দিক নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর বরিশাল জোনের নির্বাহী প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর আলম জানান, ইতিমধ্যে প্রকল্প এলাকার অবকাঠামো নির্মাণ কাজ প্রায় ৮২ ভাগ সম্পন্ন হয়েছে। প্রশাসনিক ভবন, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং ভবন, কম্পিউটার ভবন, নেভাল আর্কিটেক্ট ভবন, লাইব্রেরী, ক্যাফেটেরিয়া সহ ২টি ছাত্রাবাস ও একটি ছাত্রী নিবাসের অবকাঠামো নির্মাণের কাজ শেষের পথে। সীমানা প্রাচীর ও অধ্যক্ষের বাসভবনসহ অন্য অবকাঠামো নির্মাণ শেষে আগামী অর্থবছরের মধ্যে প্রতিষ্ঠানটি কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে আশা ব্যক্ত করেন তিনি।

জানা গেছে, বরিশাল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজটিতে প্রাথমিকভাবে সিভিল ও কম্পিউটার সায়েন্স বিষয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। তবে অদূর ভবিষ্যতে অবকাঠামো সুবিধাসহ শিক্ষক নিয়োগের মাধ্যমে আরো কয়েকটি বিষয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শিক্ষার্থী ভর্তির পরিকল্পনাও রয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে। পাশাপাশি বরিশাল ইঞ্জনিয়ারিং কলেজটি দক্ষিণাঞ্চলে কারিগরি শিক্ষার ক্ষেত্রে এক নতুন মাইল ফলক হতে পারে বলে মনে করছেন স্থানীয় শিক্ষাবিদরা।

Facebook Comments