ভোলায় যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ

আপডেট : March, 11, 2017, 8:56 pm

ভোলা প্রতিনিধি ॥
ভোলায় যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সদর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে শনিবার সকালে স্বামীর মারধরের শিকার হয়ে স্ত্রী সারমিন ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। সারমিনের মা মমতাজ বেগম জানান, প্রায় পাঁচ বছর আগে একই এলাকার আঃ মোতালেবের ছেলে ইব্রাহীম ওরফে কালু প্রেম করে তার মেয়ে সারমিনকে বিয়ে করে। বিয়েতে ছেলের বাবা রাজি না থাকায় এক বছর ইব্রাহীম স্ত্রীকে নিয়ে তাদের বাড়িতেই ছিলো। পুত্রবধুকে মেনে নেয়ার জন্য ইব্রাহিমের পিতা মোতালেব দুই লাখ টাকা দাবি করেন। এক পর্যায়ে তার দাবি পূরণ করার পর ছেলে ও ছেলের বউ শারমিনকে ঘরে তুলে নেন মোতালেব। এ ছাড়াও ইব্রাহিমকে ৩০ হাজার টাকা দিয়েছে শারমিনের পরিবার। ঘরে তুলে নেয়ার পর আরও টাকার জন্য নানানভাবে চাপ

প্রয়োক করতে থাকে ইব্রাহিমের পরিবার। কারনে-অকারনে ইব্রাহীম তার বাবা-মায়ের কথায় সারমিনকে মারধর করতো এবং মোটা অংকের যৌতুক দাবি করতো। সর্বশেষ শনিবার সকালে যৌতুকের টাকার জন্য সারমিনকে গলা টিপে ধরে এবং গাব গাছের লাঠি দিয়ে পিটিয়ে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় যখম করে। পরে ইব্রাহীমের পরিবারের লোকজনই সারমিনমে মুমূর্ষু অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসে। এব্যাপরে অভিযুক্ত ইব্রাহীমের বাবা আ: মোতালে জানান, ছেলে আমাদের অমতে বিয়ে করেছে। কিন্তু তার পরও আমরা সারমিনকে পুত্রবধূ হিসেবে মেনে নিয়েছি। আমি সকালে কাজ করতে বাড়ির বাহিরে যাই। পরে বাড়িতে এসে সারমিনের অবস্থা খারাপ দেখে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসি। যৌতুকের ব্যাপারে আমরা কিছুই জানি না। ইব্রাহীম আমাদেরকে তার শ্বশুর বাড়ির কোনো টাকা পয়সা দেয় নাই। তবে আমি শুনেছি তার শ্বাশুরী তাকে ষাট হাজার টাকা দিয়েছে।

Facebook Comments