[english_date], [bangla_day]

সাংগঠনিক বিপর্যয়ের ভয়ে বহিষ্কৃত নেতাদের দলে ফিরিয়ে নিলো বিএনপি

আপডেট: July 11, 2019

সিনিয়র নেতাদের নির্দেশ না মানা ও দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে বিএনপির প্রাথমিক সদস্য পদসহ সকল পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কৃত ২৮ জন নেতার বিরুদ্ধে বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করেছে দলটি।

৯ জুলাই রাতে বিএনপির সহদপ্তর সম্পাদক বেলাল আহমেদ স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়।

কেন ২৮ জন বহিষ্কৃত নেতাদের পুনরায় দলে ফিরিয়ে নেয়া হলো- এমন প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, বলতে দ্বিধা নেই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকে বিএনপিতে চলছে ভাঙা-গড়া খেলা। আমার জানা মতে, বিগত ছয় মাসে অন্তত ৫ হাজার কর্মী বিভিন্নভাবে বিএনপি ছেড়েছে। এমতাবস্থায় দলীয়ভাবে সংকটে পড়ার আশঙ্কা ফেলে দেয়ার মতো নয়। তাই দলীয় সিদ্ধান্ত মোতাবেক আমরা বহিষ্কৃত ২৮ নেতার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করেছি।

বিষয়টিকে ভিন্নভাবে ব্যাখ্যা করে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, বর্তমানে আমরা আর্থিক সংকটে ভুগছি। বিগত ছয় মাসে নিয়ম শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে আমরা ২ হাজার নেতাকে বাদ দিয়েছি। কিন্তু সর্বশেষ ২৮ নেতার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হলো। কারণ, তারা বিভিন্ন সময়ে দলের জন্য বড় অনুদান প্রদান করেছেন। তারা ত্যাগী বলেই দল তাদের ব্যাপারে সুবিবেচনা করেছে।

তবে ২৮ নেতার বহিষ্কারাদেশ বাতিল করায় আক্ষেপ প্রকাশ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমেদ। তিনি বলেন, মির্জা ফখরুল তার নিজের কোরামের লোকদের বহিষ্কার না করে শুধু আমার পক্ষের লোকজনকে বহিষ্কার করে দিচ্ছে। মির্জা ফখরুল কখনোই দলের স্বার্থে কাজ করেন না। তিনি চান দলের প্রধান হতে। আর এই কারণে নিজের পক্ষের লোক রেখে অন্য সিনিয়র নেতার কর্মীদের দল থেকে বহিষ্কার করে দিচ্ছেন। এটা খুবই লজ্জাজনক। এসব কৌশল দলকে ক্রমেই ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন